সমঝোতার পথ বন্ধ করেছে বিএনপি

Print

বিএনপির সঙ্গে কোনো ধরনের সমঝোতার সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘আমরা চেয়েছি সমোঝতা করতে, কিন্তু বিএনপিই সেই পথ রুদ্ধ করে দিয়েছে।’
শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে এক আলোচনায় ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে যুবলীগ এই আলোচনা সভার আয়োজন করেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার দিন শেখ হাসিনা ও তার ছোট বোন শেখ রেহানা ছিলেন বিদেশে। মর্মান্তিক এই হত্যার ছয় বছর পর শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফেরেন। এই দিনটিকে আওয়ামী লীগ ‘শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন’ দিবস হিসেবে পালন করে।
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামকে উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘ফখরুল সাহেব সমঝোতার দুয়ার আপনারাই বন্ধ করে দিয়েছেন। একজন শোকার্ত মাকে শান্তনা দিতে কোকোর মৃত্যুর সময় শেখ হাসিনা গিয়েছিলেন তার (খালেদা জিয়ার) বাসভবনের সামনে। গিয়ে দেখেন দরজায় তালা ঝুলছে, তারপর নিঃশব্দে দাঁড়িয়ে ছিলেন, কেউ আছে কিনা। এই তাদের মন-মানসিকতা, এই সমঝোতার শুরু। আপনারাই সমঝোতার দুয়ার বন্ধ করে দিয়েছেন।’
আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া ১৫ আগস্টে ভূয়া জন্মদিন পালন করে তারপরও দেশের স্বার্থে সমঝোতার জন্য ২০১৪ সালে শেখ হাসিনা টেলিফোন করেছিলেন, সংলাপের আহ্বান জানিয়েছিলেন। বেগম জিয়ার সে কি অশ্রাব্য বক্তব্য, নোংরা ভাষা। তারপরও বলেছিলাম নির্বাচনে আসতে। কিন্তু তারা নির্বাচনে না এসে শুরু করল আন্দোলন। সেই আন্দোলন কি এখনও উঠেছে?’
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘রাস্তায় গাছ পুড়েছে, ৬০০ নির্বাচন কেন্দ্র স্কুল পুড়েছে, প্রিজাইডিং অফিসার হত্যা করা হয়েছে, হত্যা করা হয়েছে বাস ট্রাকের কর্মী ৫৫ জনকে। ১৬৫ জনের জীবন নিভিয়ে দেয়া হয়েছে। কারা করল এসব? বেগম জিয়া টেলিফোনে নির্দেশনা দিয়েছেন, তিনি নিজেই নেতৃত্ব দিয়েছেন। এই সবের পরও কীভাবে সমঝোতা হয়? তারপর চেষ্টা করেছি, কিন্তু বিএনপিই সেই সমঝোতার পথ বন্ধ করেছে।’
বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের জনসভায় গ্রেনেড হামলার কথাও উল্লেখ করেন ওবায়দুল কাদের। বলেন, ‘২১ আগস্ট শেখ হাসিনার ওপর গ্রনেড হামলা হলো ক্ষমতায় তখন বিএনপি। আল্লার রহমতে সেই যাত্রায় শেখ হাসিনা বেঁচে গেছন। সেই বিচার নিয়ে তখন জজ মিয়া নাটক সাজানো হলো। বিএনপি নেতারা বললেন, শেখ হাসিনা নাকি ভ্যানিটি ব্যাগে করে গ্রেনেড এনে ছুড়ে মেরেছে। কিন্তু এই হামলার মঞ্চে কারা, পেছনে কারা দেশের মানুষ জানে।’
দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করা বিএনপিকে আগামী নির্বাচনে আসার আহ্বান জানিয়ে কাদের বলেন, ‘নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড থাকবে, নির্বাচনের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ থাকবে। নির্বাচন করবে নির্বাচন কমিশন, এই সরকার রুটিন কাজ করবে মাত্র। সুযোগ সুবিধা আমরা বিতরণ করতে পারব না।’
আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে কত সুন্দর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো, কেউ প্রশ্ন তুলল না। এমনকি বিএনপিও নির্বাচনের দিন প্রশ্ন না তুললেও পরে বলছে সুক্ষ্ম কারচুপি হয়েছে।’
বিএনপির ভিশন ২০৩০ নিয়ে কাদের বলেন, ‘ভিশন দেবেন কিন্তু ডিজিটাল হবেন না- সেটা কী করে হয়। নির্বাচনে ইভিএম মানবেন না, ইভিএম তো ডিজিটাল।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 125 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ