সম্ভাব্য মেয়রপ্রার্থীদের সবাই ব্যবসায়ী

Print

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি) ভোটের দিনক্ষণ চূড়ান্ত। এখন চলছে প্রার্থী নিয়ে হিসাব-নিকাশ। সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে যাদের নাম জোরেশোরে আসছে, তাদের প্রায় সবাই ব্যবসায়ী।
মেয়র হিসেবে প্রার্থী হওয়ার কথা জানিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে প্রচারণা চালিয়ে আসছেন তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম। এ পদে বিএনপির মনোনয়ন পাওয়ার অপেক্ষায় আছেন বিগত নির্বাচনে আনিসুল হকের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা তাবিথ আউয়াল। এছাড়া সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি এ. কে. আজাদ এবং রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী ডা. এইচবিএম ইকবালের নামও আলোচনায় রয়েছে।
ডিএনসিসিতে আনিসুল হকের শূন্যস্থান পূরণে বেশ আগ্রহী আতিকুল ইসলাম। মেয়র পদে আগ্রহের বিষয়ে জানতে চাইলে পোশাক খাতের এ ব্যবসায়ী বণিক বার্তাকে বলেন, ব্যবসায়ীদের মধ্যে যারা মূলত শ্রমঘন শিল্পের সঙ্গে সম্পৃক্ত, তারা শ্রমিকদের দেখভাল করার মাধ্যমে সেবার মনোভাব প্রকাশ করেন। আমারও ১৯ হাজার শ্রমিক ভাইবোন আছে। তাদের সামগ্রিক দেখভালের মাধ্যমে সেবা করার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। রাজনীতি যারা করেন, তাদের আরো বড় পরিসরে সেবামূলক কাজ করতে হয়। পরিধি-ব্যাপ্তি ভিন্ন হলেও রাজনীতি ও ব্যবসার মধ্যে সামঞ্জস্য আছে বলে আমি মনে করি। আর ব্যবসায়ী সমাজ থেকে আনিস ভাই (আনিসুল হক) মেয়র হিসেবে সফলতা দেখিয়েছেন। তার উদ্যমের ভালো ফল আমরা পেয়েছি। তার এ সফলতা আমাদের জন্য বড় বার্তা এবং অবশ্যই অনুপ্রেরণা। আনিসুল হকের ভালো কাজগুলো চালিয়ে যাওয়া এবং টেকসই করা এখন আমাদের দায়িত্ব।
মেয়র হলে ঢাকা শহরের মানুষের জন্য কী করতে চান— এমন প্রশ্নের উত্তরে আতিকুল ইসলাম বলেন, অর্ধশতাধিক খাত আছে, যেগুলোর সঙ্গে সমন্বয় করে মেয়রের কাজ করতে হয়। মেয়র হিসেবে প্রথমেই লক্ষ্য থাকবে সুপরিকল্পিত সমন্বয় সাধনের। এর মাধ্যমে অর্থ ও সময় বাঁচানোর সঙ্গে সঙ্গে নাগরিক সেবাও নিশ্চিত করার সুযোগ হবে। জনদুর্ভোগ কমাতে এ সমন্বয়ের কাজটিকেই আমি সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ মনে করি এবং একে মোকাবেলা করতে চাই। এ মোকাবেলার জন্য আমি ব্যবসা থেকে দূরে থাকতেও পিছপা হব না।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 68 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ