স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে ধর্ষণ

Print

সোনাগাজীর কাজীর হাটে দিন-দুপুরে স্বামীকে বেঁধে রেখে নববধূকে ধর্ষণ করে তার স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়েছে যুবলীগ কর্মীরা।
দীর্ঘ ৩ ঘণ্টা জিম্মি থাকার পর স্থানীয় ইউপি মেম্বারের সহযোগিতায় আহত স্বামী-স্ত্রীকে উদ্ধার করা হয়।

ইউপি চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় অপরাধীদের বিরুদ্ধে শুক্রবার রাতে সোনাগাজী থানা পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
পুলিশ জানায়, নোয়াখালীর বসুরহাট এলাকার এক প্রবাসী যুবক তার নতুন স্ত্রীকে নিয়ে পাশের সোনাগাজী উপজেলার ছোট ফেনী নদীর কাজীরহাট স্লুইচ গেইট এলাকায় নৌকা ভ্রমণে আসেন। এ সময় স্থানীয় যুবলীগের কর্মীরা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে স্লুইচ গেট এলাকার আশ্রয়কেন্দ্রের জামালের ঘরে স্বামীকে বেঁধে রেখে নববধূকে ধর্ষণ করে। পরে এক ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ও নগদ ৬ হাজার টাকা ও ২টি মোবাইলফোন ছিনিয়ে নেয় দুর্বৃত্তরা।
স্থানীয়রা ইউপি মেম্বার টিপনকে বিষয়টি জানালে তার সহযোগিতায় স্বামী-স্ত্রীকে তাদের আস্তানা থেকে উদ্ধার করা হয়। মেম্বার টিপন বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যানকে জানালে আহত স্বামীর কাছে ঘটনা শুনে তাদের সোনাগাজী থানায় পাঠিয়ে দেন।
রাতে স্বামী বাদী হয়ে রাসেল ও এমরানকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। লোকলজ্জার কারণে ওই স্বামী তার স্ত্রীর ধর্ষণের বিষয়টি এড়িয়ে যান।
ইউপি চেয়ারম্যান ও সোনাগাজী উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম ভুট্টু জানান, রাসেল ও এমরান এরই মধ্যে এ এলাকায় ঘুরতে আসা অনেক নারীর শ্লীলতাহানিসহ নানা ঘটনা ঘটিয়েছে। জেলা যুবলীগের এক শীর্ষ নেতার কারণে তাদের গ্রেফতার করছে না পুলিশ।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 65 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ