১/১১’র সংস্কারপন্থীরাই ভালো আছেন আ.লীগে

Print

ওয়ান ইলেভেনের এক দশক পূর্তি আজ। ২০০৭ সালের এই দিনে নির্বাচনকেন্দ্রিক রাজনৈতিক সহিংসতার মুখে আসে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার। ড. ফখরুদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে যাত্রা শুরু করে নতুন তত্ত্বাবধয়াক সরকার। বাতিল হয় ২২ জানুয়ারির নির্বাচন।

তত্ত্বাবধায়ক সরকার বলা হলেও আসলে এটা ছিল ছদ্মাবরণে সেনা শাসন। ভারত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্য সেনাবাহিনীর ভূমিকাকে সমর্থন জানায়।

ওয়ান ইলেভেন সরকার ক্ষমতা গ্রহণ করেই দুর্নীতি বিরোধী অভিযানের নামে শুরু করে রাজনীতিবিদদের ধরপাকড়। এরপর শুরু হয় মাইনাস ফর্মুলা। দুই নেত্রীকে রাজনীতি থেকে বিদায় করতে তাঁদের বিরুদ্ধে করা হয় একাধিক মামলা। গ্রেপ্তার করা হয় দুই নেত্রীকে।

আওয়ামী লীগ, বিএনপির বেশি কিছু শীর্ষ নেতা মাইনাস ফর্মুলায় সমর্থন দেয়। আওয়ামী লীগের আমীর হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, প্রয়াত আব্দুর রাজ্জাক এবং প্রয়াত সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত রাজনৈতিক সংস্কারের আড়ালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের বিরুদ্ধে অবস্থান নেন।

বিএনপিতেও প্রয়াত সাইফুর রহমান, প্রয়াত আব্দুল মান্নান ভুইঞা জেনারেল মাহাবুবুর রহমান এবং মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন নেতৃত্ব থেকে বেগম জিয়ার অপসারন চান।

বিএনপি দৃশ্যত ভেঙ্গে যায়। কিন্তু আওয়ামী লীগে সংস্কারপন্থীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হন কয়েকজন নেতা এবং বুদ্ধিজীবী। এদের মধ্যে প্রয়াত জিল্লুর রহমান ছিলেন প্রধান। মূলত তাঁর কারণেই আওয়ামী লীগ ভাঙ্গনের হাত থেকে বেঁচে যায়।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, বেগম মতিয়া চৌধুরী দৃড়ভাবে সংস্কারপন্থীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি অটুট আস্থা প্রকাশ করে দলকে ঐক্যবদ্ধ করেন। আবদুল লতিফ সিদ্দিকী, ড. আলাউদ্দিন, ডা. দিপু মনি, অ্যডভোকেট সাহারা খাতুন, অ্যাকভোকেট কামরুল শেখ হাসিনার পক্ষে অবস্থানে নিয়ে পাদ-প্রদীপে আসেন।

অন্যদিকে অধ্যাপক আবু সাঈয়ীদ, মাহমুদুর রহমান মান্না, মুকুল বোস, সুলতান মোহাম্মদ, মনসুর আহমেদরা শেখ হাসিনার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে কর্মীদের চোখে ভিলেনে পরণত হন। দলের বিশিষ্ঠ চক্ষু চিকিৎসক সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী শেখ হাসিনার  সুচিকিৎসার দাবিতে একক আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন।

বিএনপিতেও প্রয়াত খন্দকার দেলোয়ার হোসেন বেগম জিয়ার পক্ষে দৃঢ় অবস্থান নিয়েছিলেন। রুহুল কবীর রিজভীও সংস্কারপন্থীদের বিরুদ্ধে দাঁড়ান।

আজ ১০ বছর পর ফিরে তাকালে দেখা যায়, প্রধান দুই দলেই সংস্কারপন্থীদের জয়জয়কার। আওয়ামী লগের প্রধান দুই সংস্কাপন্থী এখন মন্ত্রী। শেখ হাসিনার পক্ষে অবস্থানকারীরা এখন সাইডলাইনে।

ওয়ান ইলেভেন বাংলাদেশের রাজনীতিতে দুই নেত্রীর কতৃত্বকে চ্যালেঞ্জ করেছিল। ১০ বছর পর দুই নেত্রীই তাঁদের দলের নিরঙ্কুশ ক্ষমতাবান।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 1309 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ