আত্মসমর্পণ করে পাঁচ লাখ টাকা পেলেন তিন ‘জঙ্গি’

Print

%e0%a6%86%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%ae%e0%a6%b8%e0%a6%ae%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%aa%e0%a6%a3-%e0%a6%95%e0%a6%b0%e0%a7%87-%e0%a6%aa%e0%a6%be%e0%a6%81%e0%a6%9a-%e0%a6%b2%e0%a6%be%e0%a6%96-%e0%a6%9fজঙ্গি তৎপরতা থেকে ফিরে পাঁচ লাখ টাকা করে পেলেন রংপুরের তিন যুবক। দুপুরে রংপুরে এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের উপস্থিতিতে এক অনুষ্ঠানে আত্মসমর্পণ করেন তারা। পরে তাদের হাতে চেক তুলে দেওয়া হয়।
এই তিন জন হলেন দিনাজপুর ঘোড়াঘাট উপজেলার হাফেজ মাসুদ রানা ওরফে হাফেজ মাসুদ, হাফিজুর রহমান ও আকতারুজ্জামান ওরফে আকতারুল ইসলাম। তারা সবাই জঙ্গি সংগঠন জেএমবি সদস্য ছিলেন বলে জানিয়েছে র‌্যাব।
র‌্যাব জানায়, জঙ্গি থেকে ফিরে আসা মাসুদ রানা স্থানীয় শিবির নেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তিনি বোমা তৈরি করে তা পরীক্ষামূলক বিস্ফোরণ ঘটাতেন।
তাদের আত্মসমর্পণ উপলক্ষেই রংপুর সেনানিবাসের পাশে চেকপোস্ট এলাকায় শীতল অডিটোরিয়ামে যান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের উপস্থিতিতে তারা আত্মসমর্পণ করে। পরে তাদের প্রত্যোককে পাঁচ লাখ টাকার চেক তুলে দেয়া হয়।
অনুষ্ঠানে র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়, গত ৭ জুলাই কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় ঈদের জামাতের অদূরে হামলাকারী ‘জঙ্গি’ শফিউল এর হাত ধরে এই তিন জন উগ্রবাদে ঝুঁকেছিলেন।
র‌্যাব জানায়, আত্মসমর্পণকারী হাফেজ মাসুদ রানা রামেশ্বও দারুল হুদা ফাজিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্র। হাফিজুর কলাবাড়ি দাখিল মাদ্রাসার দশম শ্রেণি এবং আক্তারুজ্জামান নারায়নপুর মিজবাহুল উলুম কওমি ও হাফেজিয়া মাদ্রসার নবম শ্রেণির ছাত্র।
অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশকে পাকিস্তান বা আফগানিস্তান বানানোর চক্রান্ত করা হয়েছিল। এজন্য এই তরুণদেরকে মগজ ধোলাই করে উগ্রবাদে জড়ানো হয়েছিল। কিন্তু সরকার এই চেষ্টা সফল হতে দেবে না।

স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি টিপু মুন্সি, রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু, র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কাজী হাসান আহমেদ, ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফরুক, রংপুর বিজিবির সেক্টোর কমান্ডার কর্নেল মো. মোয়োজ্জেম হোসেন উপস্থিত ছিলেন।
গত ১৮ জুলাই বগুড়ায় জঙ্গিবিরোধী এক অভিযান শেষে র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ ঘোষণা করেন, জঙ্গি তৎপরতা থেকে কেউ সরে আসলে বা জঙ্গিদের বিষয়ে তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে। এরপর যশোর, বগুড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় জঙ্গি তৎপরতা ছেড়ে আত্মসমর্পণ করেন একাধিক যুবক। সবশেষ গত এর আগে গত ৫ অক্টোবর বগুড়ায় আত্মসর্মপণ করেন দুই জন। তাদের হাতেও পাঁচ লাখ টাকা করে চেক তুলে দেওয়া হয়।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 51 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ