‘আমাদের দুই বোনকে বেঁধে পালা করে ধর্ষণ করেছে সেনা সদস্যরা’

Print

dorson

‘বিছানার সঙ্গে ওরা আমাদের দুই বোনকে বেঁধে রেখেছিল। এরপর একজন একজন করে সেনা এসে আমাদের ধর্ষণ করেছে।’

সেনা-অত্যাচারের বিবরণ দিতে গিয়ে এ কথা জানান মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা বছর কুড়ির ছিন্নমূল রোহিঙ্গা যুবতী হাবিবা। এসময় পাশে বসা ছিলো তার আরও দুই ভাই-বোন, তারাও সেনা-অত্যাচারের সাক্ষী।

বাংলাদেশের টেকনাফে আরও অনেক রোহিঙ্গা শরণার্থীর সঙ্গেই এখন ঠাঁই হয়েছে মিয়ানমার থেকে কোনওক্রমে পালিয়ে আসা এই দুই বোনের।

হাবিবার ছোট বোন সামিরার বয়স ১৮। সে জানাল ‘মিয়ানমারের উদাং গ্রামে আমাদের বাড়ি ছিল। একদিন সেই বাড়িতেই হানা দিল সেনা সদস্যরা। দুই বোনকে উপর্যুপরি ওরা ধর্ষণ করল। যাওয়ার আগে আমাদের ঘরটাতেও ওরা আগুন দিল।’

তার আরও আগে হাবিবাদের বাবাকে হত্যা করে, তাদের মাথার উপর থেকে ছাতাটাই কেড়ে নেয় মায়ানমার সেনা।

হাবিবা, সামিরা ব্যতিক্রম নয়। এই দুই বোনের মতো রোজ আরও অনেক রোহিঙ্গা কিশোরী-যুবতী ধর্ষিত হচ্ছে। বাধা দিলে নৃশংস ভাবে মেরে ফেলে চলে যাচ্ছে সেনারা। জ্বালিয়ে দেওয়া হচ্ছে বাড়িঘর।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 140 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ