একজন ফিদেল কাস্ত্রো – যাকে ইতিহাস মনে রাখবে : (১৯২৬ থেকে ২০১৬)

Print
ফিদেল কাস্ত্রো : ১৯২৬ থেকে ২০১৬

ফিদেল কাস্ত্রোফিদেল কাস্ত্রো

প্রায় অর্ধ শতাব্দী ধরে এক দল বিশিষ্ট কিউবার শাসন ক্ষমতায় ছিলেন ফিদেল কাস্ত্রো।

সারা বিশ্বে যখন কমিউনিস্ট সরকারগুলো ধসে পড়ছে ঠিক তখন কমিউনিস্ট ব্যবস্থার বৃহত্তম শত্রু বলে পরিচিত আমেরিকার দোরগোড়াতেই সমাজতন্ত্রের ধ্বজা তুলে ধরে রেখেছিলেন মি. কাস্ত্রো।

তার সমর্থকেরা তাকে সমাজতন্ত্রের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে দেখতেন, যিনি জনগণের কাছে কিউবাকে ফেরত দিয়েছিলেন।

তবে বিরোধীদের প্রতি চরম দমন-পীড়নের অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

১৯২৬ সালের ১৩ই অগাস্ট জন্ম হয় ফিদেল আলেহান্দ্রো কাস্ত্রো রুৎজের।

স্পেন থেকে কিউবাতে আসা একজন ধনী কৃষক আনহেল মারিয়া বাউতিস্তা কাস্ত্রোর অবৈধ সন্তান ছিলেন তিনি।

পিতার খামারের ভৃত্য ছিলেন মা লিনা রুৎজ গনজালেজ, যিনি পরবর্তীতে ছিলেন তার পিতার রক্ষিতা।

ফিদেলের জন্মের পর তার মাকে স্ত্রীর মর্যাদা দেন তার পিতা।

সান্টিয়াগোর ক্যাথলিক স্কুলে শিক্ষাজীবন শুরু হয় ফিদেলের।

পরে তিনি যোগ দেন হাভানার কলেজ এল কলেজিও ডে বেলেন-এ।

তবে খেলাধুলার দিকে বেশী মনযোগ থাকার কারণে পড়াশোনায় খুব ভাল করতে পারেননি তিনি।

১৯৪০-এর দশকে হাভানা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন পড়বার সময়ে তিনি রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন।

 

কাস্ত্রোকিউবার সাধারণ জনগণের মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন ফিদেল কাস্ত্রো।

মার্ক্সবাদ:

১৯৪৮ সালে কিউবার ধনী এক রাজনীতিবিদের কন্যা মার্টা ডিয়াজ বালার্টকে বিয়ে করেন মি. কাস্ত্রো।

এই বিয়ের মাধ্যমে দেশটির এলিট শ্রেণীতে যুক্ত হয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল তার, কিন্তু তার বদলে তিনি আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে গেলেন মার্ক্সবাদে।

তিনি বিশ্বাস করতেন কিউবার লাগামহীন পুঁজিবাদের কারণে দেশটির যাবতীয় অর্থনৈতিক সমস্যার উদ্ভব এবং একমাত্র জনগণের বিপ্লবের মাধ্যমেই এই সমস্যার সমাধান হতে পারে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পাট চুকানোর পর আইন পেশা শুরু করেন কিন্তু এই পেশায় তিনি সফল হতে ব্যর্থ হন।

ফলশ্রুতিতে দেনায় ডুবে যান তিনি।

এই পরিস্থিতিতেও রাজনীতি অব্যাহত রাখেন তিনি।

প্রায়ই সহিংস বিক্ষোভে জড়িয়ে পড়তেন তিনি।

বাতিস্তাবাতিস্তা ছিলেন মার্কিন মিত্র

আক্রমণ:

১৯৫২ সা ফুলগেন্সিও বাতিস্তা একটি সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট কার্লোস প্রিয়র সরকারকে উচ্ছেদ করেন।

বাতিস্তার সরকারের নীতি ছিল যুক্তরাষ্ট্রের মতই, যা ছিল কাস্ত্রোর বিশ্বাসের পরিপন্থী।

ফলে বাতিস্তা সরকারকে উৎখাতের জন্য তিনি একটি গোপন সংগঠন গড়ে তোলেন যার নাম ‘দ্য মুভমেন্ট’।

এসময় কিউবা পরিণত হয়েছিল উচ্ছৃঙ্খল ধনীদের স্বর্গরাজ্যে।

যৌন ব্যবসা, জুয়া এবং মাদক চোরাচালান চরম আকার ধারণ করেছিল।

সশস্ত্র বিপ্লবের জন্য অস্ত্র সংগ্রহের উদ্দেশ্যে ১৯৫৩-র জুলাই মাসে সান্টিয়াগোর কাছে মোনাকাডা সেনা ছাউনিতে একটি আক্রমণের পরিকল্পনা করেন কাস্ত্রো।

আক্রমণটি ব্যর্থ হয় এবং বহু বিপ্লবী হয় নিহত হয় নয়তো ধরা পড়ে।

বন্দীদের মধ্যে কাস্ত্রোও ছিলেন।

১৯৫৩ সালে তার বিচার শুরু হয়।

বিচারের শুনানিগুলো কাস্ত্রো ব্যবহার করতেন সেনাবাহিনীর দমন-পীড়নের ঘটনাবলী ফাঁস করে দেয়ার মঞ্চ হিসেবে।

এসময় শুনানিগুলোতে বিদেশী সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার ছিল, ফলে কাস্ত্রোর জনপ্রিয়তা এসময় বেড়ে যায়।

কাস্ত্রোকে অবশ্য ১৫ বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত।

কাস্ত্রোমোনাকাডা গ্যারিসনে ব্যর্থ হামলার সময় ধরা পড়েন কাস্ত্রো।

গেরিলা যুদ্ধ:

সাধারণ ক্ষমার মাধ্যমে ১৯৫৫ সালের মে মাসে জেল থেকে ছাড়া পান কাস্ত্রো।

জেলে থাকার সময়েই স্ত্রীকে তালাক দেন তিনি এবং মার্ক্সবাদে আরো ভালোভাবে জড়িয়ে পড়েন।

ছাড়া পাওয়ার পর ফের গ্রেপ্তার এড়াতে মেক্সিকো পালিয়ে যান তিনি।

সেখানে তার পরিচয় হয় আরেক তরুণ বিপ্লবী আরনেস্তো চে গুয়েভারার সঙ্গে।

১৯৫৬ সালের নভেম্বরে ১২ জন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন একটি ইঞ্জিন নৌকায় ৮১ জন সশস্ত্র সঙ্গীকে নিয়ে কিউবায় ফিরে আসেন ফিদেল কাস্ত্রো।

তারা সিয়েরা মায়েস্ত্রা পাহাড়ে আশ্রয় নেন এবং এখান থেকে হাভানার সরকারের বিরুদ্ধে দু বছর ধরে গেরিলা আক্রমণ চালান।

১৯৫৯ সালের দোসরা জানুয়ারি বিদ্রোহীরা হাভানায় প্রবেশ করে। বাতিস্তা পালিয়ে যান।

এসময় বাতিস্তার বহু সমর্থককে বিচারের মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।

এসব বিচার কার্যক্রমকে অনেক বিদেশী পর্যবেক্ষকই ‘অনিরেপক্ষ’ বলে মনে করেন।

চে গুয়েভারার সঙ্গে কাস্ত্রোচে গুয়েভারার সঙ্গে কাস্ত্রো

আদর্শ:

কিউবার নতুন সরকার জনগণকে সব জমি বুঝিয়ে দেবার এবং গরীবের অধিকার সুরক্ষার প্রতিশ্রুতি দেয়।

কিন্তু একই সাথে দেশে একটি এক দলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করা হয়।

রাজবন্দী হিসেবে বহু মানুষকে কারাগারে এবং শ্রম শিবিরে প্রেরণ করা হয়।

হাজার হাজার মধ্যবিত্ত কিউবান বিদেশে পালিয়ে নির্বাসন নেন।

১৯৬০ সালের কিউবাতে থাকা সকল মার্কিন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রাষ্ট্রায়ত্ত খাতে নিয়ে নেয়া হয়।

জবাবে যুক্তরাষ্ট্র কিউবার উপর একটি বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যা একবিংশ শতক পর্যন্ত অব্যাহত ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের এক নম্বর শত্রু:

বিপ্লবের সময় তৎকালীন সোভিয়েত রাশিয়া এবং এর নেতা নিকিতা ক্রুশ্চেভের সাথে মিত্রতা তৈরি হয় কাস্ত্রোর।

ফলে কিউবা পরিণত হয় ঠাণ্ডা যুদ্ধের যুদ্ধক্ষেত্রে।

১৯৬১ সালের এপ্রিল মাসে যুক্তরাষ্ট্র কাস্ত্রো সরকারকে উৎখাতের চেষ্টা চালায় একদল নির্বাসিত কিউবানকে দিয়ে দ্বীপটি দখল করিয়ে নেবার মাধ্যমে।

ওই চেষ্টা ব্যর্থ হয়, বহু মানুষ এসময় নিহত হয়, হাজার খানেক মানুষ ধরা পড়ে।

এই ঘটনা পরবর্তীতে কিউবা নিয়ে সোভিয়েত ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রকে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেয়।

ফিদেল কাস্ত্রো আমেরিকার এক নম্বর শত্রুতে পরিণত হন।

সিআইএ তাকে হত্যার চেষ্টাও করে।

কাস্ত্রো১৯৫৯ সালে, সশস্ত্র সঙ্গীদের নিয়ে হাভানা প্রবেশের পর।

জোট নিরপেক্ষ:

যদিও ওই ঠাণ্ডা যুদ্ধের সময়কালে মার্কিন বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা স্বত্বেও সোভিয়েত ইউনিয়নের সাহায্যই টিকিয়ে রেখেছিল কিউবাকে, কিন্তু কাস্ত্রো তখন নজর দেন নবগঠিত জোট নিরপেক্ষ আন্দোলনের দিকে।

অবশ্য পক্ষও নিতেন মি. কাস্ত্রো।

তিনি অ্যাঙ্গোলা ও মোজাম্বিকে মার্ক্সবাদী গেরিলাদের সাহায্যে সৈন্য পাঠিয়েছিলেন।

১৯৮০-র দশকে বিশ্ব রাজনীতির মোড় ঘুরতে শুরু করে।

মিখাইল গর্ভাচেভের নেতৃত্বাধীন মস্কো কিউবা থেকে আর চিনি কিনতে অস্বীকৃতি জানায়। এদিকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞাও অব্যাহত থাকায় কিউবা বিরাট বিপদে পড়ে যায়।

খাদ্য ঘাটতি দেখা দেয় এসময়।

এসময় ফিদেল কাস্ত্রো ঘোষিত বিশ্বের সবচাইতে অগ্রসরমান কিউবা কার্যত মান্ধাতা যুগে ফিরে যায়।

১৯৯০ এর দশকে পরিস্থিতি এমন দাঁড়ায় যে হাজার হাজার কিউবান ভালভাবে বেঁচে থাকার আশায় সমুদ্রে পাড়ি জমায় যুক্তরাষ্ট্রে যাবার উদ্দেশ্যে।

এসময় বহু মানুষ সমুদ্রে ডুবে মারা যায়।

কিন্তু অনেকেই এসব মৃত্যু এবং হাজার হাজার কিউবানের আমেরিকায় পাড়ি জমানোকে দেখেছেন ফিদেল কাস্ত্রোর প্রতি অনাস্থার নিদর্শন হিসেবে।

ক্রুশ্চেভের সঙ্গে কাস্ত্রোসোভিয়েত নেতা ক্রুশ্চেভের সঙ্গে কাস্ত্রো

ক্যারিবিয়ান কম্যুনিজম:

মি. কাস্ত্রোর শাসনামলে কিউবায় অবশ্য বহু অভ্যন্তরীণ উন্নয়নও হয়েছে।

দেশটির প্রতিটি নাগরিকই বিনামূল্যে উন্নত চিকিৎসা সেবা পায়।

বিশ্বের বহু উন্নত দেশের তুলনায় কিউবায় শিশুমৃত্যুর হার কম।

শাসনামলের শেষ দশ বছরে নিজের বিপ্লবকে বাঁচাতে মুক্ত বাণিজ্যের কিছু কিছু দিক গ্রহণ করতে বাধ্য হন মি. কাস্ত্রো।

২০০৬ সালের ৩১শে জুলাই ৮০তম জন্মদিনের কয়েকদিন আগে ভাই রাউলের হাতে সাময়িক শাসনভার দিয়ে একটি জরুরী অস্ত্রোপচারে যান তিনি।

এসময় তার শারীরিক অবস্থার দ্রুত অবনতি ঘটতে থাকে।

২০০৮ সালের গোড়ার দিকে তিনি অবসরে যাবার ঘোষণা দেন।

ফিদেলের জীবনের ১০ ঐতিহাসিক বসন্ত
ফিদেলের জীবনের ১০ ঐতিহাসিক বসন্ত
কিউবা তখন সূর্যের মুখোমুখি হয়নি। নিঝুম রাত। ঘুমিয়ে আছে কিউবা। জেগে আছে একটাই মানুষ। চোখের পাতা দুটো তখনও স্থির। চেয়ে আছেন ফিদেল। নিশ্বাস নেওয়ার সময় ফুরিয়ে আসছে, অনুভব করতে পেরেছিলেন বহুদিন আগেই। এবার প্রহর গুনতে শুরু করলেন। না, আর নয়। ব্যাটনের দায়িত্ব অনেক দিন আগেই দিয়ে দিয়েছিলেন ভাইয়ের হাতে, এবার পৃথিবী থেকে মুক্তির পথে যাত্রা শুরু করেছেন মানব মুক্তির পথ দেখানো নায়ক ফিদেল।

মনে পড়ছে, খুব মনে পড়ছে সেই প্রথম কান্না। চোখের সামনে ভাসছে ১৯৫৯ সালের কিউবান বিপ্লবের রোমহর্ষক স্মৃতি। বলিভিয়া, গেরিলা যুদ্ধ। বন্ধু চে যেন হাত বাড়িয়ে রয়েছেন, এসো ফিদেল। চে গুয়াভারাকে যেন চোখের ইশারায় বুঝিয়ে দিলেন, ‘চুরুট’টা ধরিয়ে রাখো, কাউন্টারটা নেব কিন্তু।’ কল্পনায় তখন মৃদু হাসি চে গুয়েভারার। চে, আর দশ সেকেন্ড দাও, দশটা অতীতকে একবার শেষ বার দেখেনি।

১৯২৬: কিউবার দক্ষিণ-পূর্ব ওরিয়েন্টে প্রোভিন্স। (জন্মভিটে)

১৯৫৩: বাতিস্তা শাসনের বিরুদ্ধে সংগ্রাম, কারাবাস। (জেল বন্দি ফিদেল)

১৯৫৫: জেল থেকে মুক্তি হল অস্ত্র সংবরণ চুক্তি স্বাক্ষর করে। (জেল থেকে মুক্ত ফিদেল)

১৯৫৬: বন্ধু চে’র সঙ্গে গেরিলা আন্দোলন শুরু। (গেরিলা আন্দোলনের কাণ্ডারী ফিদেল)

১৯৫৯: বাতিস্তা শাসনকে পরাজিত করে কিউবার প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ। (কিউবার প্রধানমন্ত্রী ফিদেল)

১৯৬১: আমেরিকার CIA-র মদতে ফিদেলের ওপর আক্রমণ প্রতিহত করা। 

১৯৬২: সোভিয়েত রাশিয়ার সঙ্গে নিউক্লিয়ার চুক্তি স্বাক্ষর। 

১৯৭৬: কিউবার ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হলেন ফিদেল কাস্ত্রো। 

১৯৯২: আমেরিকার সঙ্গে কিউবার  মধ্যস্থতায় না কিউবার। (ফিদেলের সিদ্ধান্ত, সাম্রাজ্যবাদী মার্কিনদের সঙ্গে সন্ধি নয়) 

২০০৮: কিউবার প্রেসিডেন্ট পদ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন ফিদেল কাস্ত্রো। 

কেন ইতিহাস মনে রাখবে ফিদেল কাস্ত্রোকে

ফিদেল কাস্ত্রো

তার বিখ্যাত দাড়ি, মুখের চুরুট, আর কালচে-সবুজ সামরিক পোশাকের জন্য সারা দুনিয়ায় ফিদেল কাস্ত্রো ছিলেন সবার পরিচিত মুখ।

অনেক অর্থেই ফিদেল কাস্ত্রো বিশ্ব-ইতিহাসের একটা সময়ের এক প্রতীকী চরিত্র।

বিপ্লবী আন্দোলন, স্নায়ুযুদ্ধ, পূর্ব-পশ্চিম দ্বন্দ্ব, পুঁজিবাদ আর কমিউনিজমের সংঘাত – এসব মিলে গড়ে ওঠা সেই কালপর্ব ফিদেল কাস্ত্রোর জীবনেরও গল্প।

মাত্র ৩৩ বছর বয়েসে ১৯৫৯ সালে কিউবার তখনকার শাসক বাস্তিতাকে উৎখাত করে কাস্ত্রো পাঁচ দশক ধরে ক্ষমতায় ছিলেন, পার করেছেন ১০ জন আমেরিকান প্রেসিডেন্টের শাসনকাল।

মোকাবিলা করেছেন ৬শ ৩৮টি হত্যাপ্রচেষ্টা।

কিন্তু কিসের জন্যে ইতিহাস তাকে মনে রাখবে?

ফিদেল কাস্ত্রোসারাজীবন তার বিশ্বাসে অবিচল ছিলেন কাস্ত্রো

বিশ্লেষকরা বলেন, তার শাসনের সময় কিউবাকে তিনি দিয়েছেন প্রথম বিশ্বের সমতুল্য শিক্ষার হার , আর এক স্বাস্থ্য ব্যবস্থা – যা অনেক দেশের কাছে ঈর্ষার বস্তু। কিউবানদের গড় আয়ু এবং শিশুমৃত্যুর অতি নিম্ন হারও পশ্চিম ইউরোপের সাথে তুলনীয় – যদিও তাদের মাথাপিছু আয় উন্নত দেশগুলোর তুলনায় নগণ্য।

একজন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তিনি লাতিন আমেরিকায় মার্কিন প্রভাব-আাধিপত্যের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন আজীবন, অনুপ্রাণিত করেছেন ভেনেজুয়েলার উগো চাভেজ, বা বলিভিয়ার ইভো মোরালেসের মতো নেতাদের ।

ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব কিউবান স্টাডিজের সম্পাদক ড. স্টিফেন উইলকিনসন বলেন, এটা ঠিক যে কাস্ত্রো কঠোর হাতে তার শত্রুদের দমন করেছেন। কিন্তু এটাও ঠিক যে অন্য অনেক দেশে বিপ্লবের পর যেমন হয়েছে কিউবায় কিন্তু তেমন কোন রক্তগঙ্গা বয়ে যায় নি, স্তালিনের গুলাগের মতো কিউবায় কোন শ্রমশিবিরও ছিল না।

১৯৬১ সালে মার্কিন সমর্থিত বে অব পিগস অভিযানকে পরাজিত করতে পারাটা ছিল কাস্ত্রোর আরেকটি বিরাট অর্জন।

ফিদেল কাস্ত্রো আফ্রিকার রাজনৈতিক ইতিহাসে কাস্ত্রোর ভুমিকা গুরুত্বপূর্ণ

তেমনি আফ্রিকায় এ্যাংগোলার যুদ্ধে কিউবার ভূমিকা ইতিহাসের গতিপথ বদলে দিয়েছিল। ১৯৮৮ সালে কাস্ত্রো নিজে এমনভাবে সামরিক পরিকল্পনা করেছিলেন – যাতে দক্ষিণ আফ্রিকা পরাজিত হয়, তারা এ্যাংগোলা থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করে এবং নামিবিয়া স্বাধীন হয়।

পরে এমনকি নেলসন মান্দেলাও বলেছিলেন, তার কারামুক্তি এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় বর্ণবাদী শাসনের অবসানের পেছনে প্রভাব ফেলেছে ওই যুদ্ধ।

শেষ জীবনে ফিদেল যখন তার ভাই রাউলের হাতে ক্ষমতা ছেড়ে দিলেন তার পরেও বিশ্বের বহু দেশের রাজনীতিকরা তার সাথে দেখা করতে যেতেন।

ফিদেল কাস্ত্রোচাভেজ ও মোরালেসের মত নেতাদের কাছে কাস্ত্রো ছিলেন অনুপ্রেরণা

চিলির কবি পাবলো নেরুদা বলেছিলেন, লাতিন আমেরিকার রাজনৈতিক নেতারা অনেক প্রতিশ্রুতি দেন কিন্তু পূরণ করতে পারেন খুবই সামান্য। কিন্তু কাস্ত্রো ছিলেন এর ব্যতিক্রম। তিনি আমেরিকার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছিলেন, কখনো তাদের চাপে পিছু হটেন নি – এবং এই অদম্য চেতনা তার একটা বৈশিষ্ট্য ছিল।

কাস্ত্রোও তার স্বপ্নের অনেক কিই পূরণ করতে পারেন নি , অনেক ক্ষেত্রেই তাকে পেছনে ফেলে সময় এগিয়ে গেছে।

তার নীতির সাথে সবাই একমত হবেন না, কিন্তু এটা ঠিক যে তিনি তার অঙ্গীকারের প্রতি আজীবন অনড় ছিলেন।

ড. স্টিফেন উইলকিনসনের মতে এটা রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে খুবই দুর্লভ এক গুণ – এবং এটাই হয়তো তার সবচেয়ে বড় উত্তরাধিকার।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 100 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ