কাঁঠালিয়ায় সাঁকো সংস্কারের অভাবে কলা গাছের ভেলায় চরে নদী পাড় হয় শিক্ষার্থীরা

Print

kola-gaser-vala
আজমীর হোসেন তালুকদার,ঝালকাঠি:: ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলাধীন পাটিখালঘাটা ইউনিয়নের আমুয়া-মরিচবুনিয়ার চারাঘাটা মিস্তুরী খালের উপর চলাচলের সাকোটির একপ্রান্ত ভেঙ্গে যাওয়ার স্থানীয় শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসীকে দারুন দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। সহজে ও অল্প সময়ে এ সাকো পাড় হয়ে দূর দুরন্ত থেকে ৩৯ নং পশ্চিম ছোনাউটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাসহ এলাকাবাসী যাতায়াত করলেও ভেঙ্গে যাওয়া সাকোটি দীর্ঘ দিনেও মেরামত না করায় তাদের এ দূর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে চলাচলের একমাত্র অবলম্বন এই সাঁকো দীর্ঘ যাবৎ একাংশ ভেঙ্গে পড়ে থাকায় বাধ্য হয়ে ছাএ-ছাত্রীরা ও এলাকাবাসী প্রায় ৫ কিলোমিটার না ঘুরে যাতায়াত করছে। এঅবস্থায় কিছু সংখ্যক শিক্ষার্থী নিজেরা তৈরি করা কলাগাছের ভেলা বানিয়ে কমকষ্টে ও অল্প সময়ে বিদ্যালয়ে যাতায়াতের বিকল্প ব্যবস্থা করে নিয়েছে। তবে কলাগাছের ভেলায় চরে ঝুকিপূর্ন এ পারাপার করতে গিয়ে অনেক ছাত্র-ছাত্রীরা বই খাতা নিয়ে পানিতে পড়ে দূর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছে বলে জানাগেছে।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মুকুল আক্তার জানান, আমাদের বিদ্যালয়ে বর্তমানে প্রায় দেড় শতাধীক ছাত্র-ছাত্রীর অধিকাংশই বিদ্যালয়ের সামনের খালের সাঁকো দিয়ে যাওয়া আসা করতো। বর্তমানে সাঁকো না থাকায় অনেক শিক্ষার্থী নিয়মিত স্কুলে যাতায়াত করতে পারছে না। এলাকাবাসীও দীর্ঘ দিন ধরে ভেঙ্গে যাওয়া সাঁকোটি মেরামত বা সংস্কারের জন্য দাবী জানালেও সেদিকে সংশ্লিষ্ট কারো কোন খেয়াল নেই। অথচ এ সাঁকোটি দ্রুতো ঠিক করা অথবা নির্মান করা হলে বিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা ও শিক্ষার হার আরো বাড়তো।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ সোনা মিয়া বলেন, আমি স্থানীয় যুবকদের নিয়ে সেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে বহুবার এ সাঁকোটি সংস্কার করেছি। এবার আমি নিজের ব্যক্তিগত কাজে ব্যস্ত থাকায় সাঁকোটি মেরামত করতে বিলম্ব হয়েছে। আমি আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে স্থানীয় যুবকদের সহায়তায় সাকোটি মেরামত ও চলাচলের উপযোগী করা হবে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 46 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ