গুলশান হত্যাযজ্ঞে আইএসের গভীর সম্পৃক্ততার নতুন প্রমাণ

Print

%e0%a6%97%e0%a7%81%e0%a6%b2%e0%a6%b6%e0%a6%be%e0%a6%a8-%e0%a6%b9%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%af%e0%a6%9c%e0%a7%8d%e0%a6%9e%e0%a7%87-%e0%a6%86%e0%a6%87%e0%a6%8f%e0%a6%b8%e0%a7%87%e0%a6%b0রাজধানী ঢাকার গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা চালিয়ে বিদেশীসহ ২২জনকে হত্যার ঘটনায় মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সম্পৃক্ততা ছিল।
এমনকি এ হামলার পরিকল্পনার জন্য অভিযুক্ত নিহত বাংলাদেশী-কানাডিয়ান তামিম আহমেদ চৌধুরী হামলার আগে আইএসের কাছ থেকে অনুমোদনও নিয়েছিলেন।

বাংলাদেশ পুলিশের এক শীর্ষ কর্মকর্তার বরাতে করা এক বিশেষ প্রতিবেদনে এ কথা জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।
ওই পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, তিনি এমন কিছু নতুন তথ্যপ্রমাণ পেয়েছেন যাতে গুলশান হামলাসহ বাংলাদেশ থেকে সদস্য সংগ্রহ এবং জঙ্গি অর্থায়নের চিত্র পাওয়া যায়।
এতে দেখা যাচ্ছে, আইএস বাংলাদেশের জঙ্গিদের সঙ্গে এক গভীর সংযোগ গড়ে তুলেছিল। এ ধরনের সংযোগের কথা আগে কখনও জানা যায়নি বলে জানান ওই কর্মকর্তা।
তিনি জানান, তামিম চৌধুরীর (৩০) সঙ্গে আইএস নেতা আবু তারেক মোহাম্মদ তাজুদ্দীন কাওসারের (৩৫) যোগাযোগ ছিল।
কাওসার রিক্রুটের ক্ষেত্রে বেশি করে বিদেশীদের টার্গেট করতে তামিমকে পরামর্শ দেন।
তামিম ও কাওসারের মধ্যকার যোগাযোগের ঘটনা প্রত্যক্ষ করার দাবি করেছেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা। তবে তার এ দাবি স্বাধীনভাবে যাচাই করা যায়নি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।
আর স্পর্শকাতর তথ্যের কারণে ওই পুলিশ কর্মকর্তা নিজের নামও প্রকাশ করতে রাজি হননি বলে উল্লেখ করেছে সংস্থাটি।
উল্লেখ্য, চলতি বছরের ১ জুলাই হলি আর্টিজান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়। ওই সময় ২২জনকে হত্যা করে হামলাকারীরা। পরে সেনাবাহিনীর অভিযানে পাঁচ হামলাকারীও নিহত হন।
এই ঘটনার প্রায় দুই মাস পরে গত ২৭ আগস্ট নারায়ণগঞ্জে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক অভিযানে তামিম চৌধুরীও নিহত হন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 86 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ