ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায় শিশু কন্যাকে পুকুরে ফেলে হত্যা

Print

ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায় ছয় মাস বয়সী কন্যা শিশুকে পানিতে ফেলে হত্যা করলো পাষণ্ড পিতা। গেলো শুক্রবার সিলেটের বিয়ানিবাজারের মুড়িয়া ইউনিয়নের ঘুঙানিয়া গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

রোববার সিলেট আদালতে পিতা উজ্জ্বল আহমেদ এ হত্যার কথা স্বীকার করে এখন কারাগারে আছেন।

বিয়ানিবাজার থানার সূত্রে জানা যায়, উজ্জ্বল আহমেদ ও রহিমা বেগমের ৬ মাস বয়সী কন্যা শিশু শুক্রবার ভোরে কাঁদছিল। পরে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায় রাগে শিশুটিকে পুকুরে ফেলে দেয় তার বাবা।

পরে ওই পুকুর থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় শিশুর বাবা-মাকে সন্দেহ করে পুলিশ। তাদের দুজনকেই আলাদাভাবে জিজ্ঞাসাবাদের পর শিশুর পিতা উজ্জ্বল আহমেদকে বেশি সন্দেহ করে পুলিশ। পরে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পর উজ্জ্বলকে শনিবার আটক করে পুলিশ। ওই দিনই স্বামীর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন রহিমা বেগম।

বিয়ানিবাজার থানার ওসি মো. বদরুজ্জামান জানান, শিশুটির বাবা আদালতে তার স্বীকারোক্তিতে বলেছে ‘সারাদিন কাজ করি, রাতে ঘরে এসে ঘুমাতে পারি না, মেয়ে কাঁদে খালি। কয়দিন ধরে বেশি কাঁদতেছে, মুখে ঘা, অসুস্থ। সেদিন রাতে কান্নার চোটে রাগ উঠে গেছিল। তার মা দেখি ঘুমায়। রাগে তাকে নিয়ে ফেলে দিছি পুকুরে।’

এ প্রসঙ্গে পুলিশের কাছে রহিমা বেগম বলেছেন, তার স্বামী তাকে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়েছিল। তাই এ ব্যাপারে সেসময় তিনি কিছু বলেনি।

তবে শিশুটির মরদেহ পাবার পর থেকেই তার মা রহিমা মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন বলে জানাচ্ছে পুলিশ।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 50 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ