ছাত্রলীগই ছাত্রলীগের প্রতিপক্ষ

Print

%e0%a6%9b%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%b2%e0%a7%80%e0%a6%97%e0%a6%87-%e0%a6%9b%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%b2%e0%a7%80%e0%a6%97%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) সবকিছুতেই ছাত্রলীগ। টেন্ডার, নিয়োগ বাণিজ্য, সংঘর্ষ-হানাহানি, অবরোধ, ট্রেনের বগি আর হল দখল সবকিছুতেই ছাত্রলীগের হাত রয়েছে। তারা এতটাই বেপরোয়া, বেসামাল যে ‘পান থেকে চুন খসলেই’ সংঘাতে জড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন গ্রুপ ও উপগ্রুপ। গত এক বছরে তাদের মধ্যে অর্ধশতাধিক সংঘর্ষ এবং ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। নিয়ন্ত্রণহীন ছাত্রলীগের লাগাম টানতে গত ৯ ফেব্রুয়ারি চবি ছাত্রলীগের কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। পরে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করা হলেও থামানো যায়নি ছাত্রলীগকে। চবি ছাত্রলীগের এমন কর্মকাণ্ডে শঙ্কিত ছাত্ররাজনীতিসহ পুরো চট্টলা।
টেন্ডার এবং নিয়োগ বাণিজ্যে ছাত্রলীগ জড়িয়ে পড়ার অভিযোগটি অস্বীকার করেছেন চবি ছাত্রলীগের সভাপতি আলমগীর টিপু। তিনি বলেন, ‘এটা অপপ্রচার ছাড়া কিছুই নয়। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ অপপ্রচারটা এত জোরালোভাবে করছে যে, মিথ্যাটাই যেন আজ সত্যে পরিণত হয়েছে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অন্যায়কে কখনো চবি ছাত্রলীগ আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয় না। দায়িত্ব নেওয়ার পর এ পর্যন্ত যারাই অপরাধ করেছে, তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’
জানা যায়, ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি ছাত্রলীগ-শিবির রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। ওই সংঘর্ষে মামুন হোসেন নামে এক শিবির নেতা নিহত এবং উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়। ওই সংঘর্ষের পর থেকে শিবিরের শক্ত ঘাঁটি চবি ক্যাম্পাসে একক আধিপত্য খর্ব হতে থাকে। পরবর্তী এক বছরে পুরো ক্যাম্পাসে একক আধিপত্য বিস্তার করে ছাত্রলীগ। গত বছরের ২১ জুলাই চসিক মেয়র আ জ ম নাছিরের সমর্থক আলমগীর টিপুকে সভাপতি এবং সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী ফজলে রাব্বী সুজনকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এ কমিটি ঘোষণার পর থেকে ক্যাম্পাসে বেপরোয়া হয়ে ওঠে দুমফ গ্রুপ। এ দুই গ্রুপের মধ্যেই সৃষ্টি হয় শাটল ট্রেনের বগিভিত্তিক এবং ক্যাম্পাসভিত্তিক কমপক্ষে ১৩টি উপগ্রুপ। এ সময় চবির উন্নয়ন কাজের টেন্ডার ভাগাভাগি, নিয়োগ বাণিজ্য, আধিপত্য বিস্তার, হলের সিট ও বগি দখল, চিকা মারা, বিভিন্ন দিবসে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়ার সময়, বান্ধবীকে অশালীন মন্তব্য করা, সিনিয়র-জুনিয়রদের মধ্যে কটূক্তি করা নিয়ে একের পর এক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। প্রশাসন ও ছাত্রলীগের নেতাদের দেওয়া তথ্য মতে, গত এক বছরে ছাত্রলীগের বিভিন্ন গ্রুপ এবং উপগ্রুপগুলোর মধ্যে অর্ধশতাধিক সংঘর্ষ এবং ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গত ২০ নভেম্বর চবি ক্যাম্পাস থেকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক দিয়াজ ইরফান চৌধুরীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় চবি ছাত্রলীগ নেতা ও সহকারী প্রক্টর আনোয়ার হোসেনসহ ১০ জনকে আসামি করে মামলা করেছে দিয়াজের পরিবার।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 54 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ