নষ্ট হওয়া ফুসফুস

Print
নষ্ট হওয়া ফুসফুস

বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞরা প্রায়ই একটি সমস্যাসহ কিছু রোগী পেয়ে থাকেন যাদের ফুসফুস নষ্ট বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গেছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে একটি ফুসফুস নষ্ট থাকে। আবার অনেক ক্ষেত্র দুই ফুসফুসই নষ্ট হয়ে যায়। তখন রোগী তীব্র শ্বাসকষ্টে ভোগে, যাকে আমরা রেসপিরেটরি ক্রিপল বলে থাকি। বিশ্রামে থাকলে রোগী মোটামুটি ভালো থাকে তবে একটু পরিশ্রম করলেই প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে যায়। এক ফুসফুস নষ্ট হয়ে যাওয়ার পর আরেক ফুসফুস সম্পূর্ণ ভালো থাকলে অনেক সময় রোগী খুব একটা টের পায় না। শুধু বুক ব্যথা বা কফ-কাশি হলে চিকিৎসক এক্স-রে করালে যখন রোগী জানতে পারে যে তার একটি ফুসফুস নষ্ট তখনই তার সমস্যা শুরু হয়ে যায়। আর যদি একটি ফুসফুস সম্পূর্ণ নষ্ট এবং আরেক ফুসফুস কিছু খারাপ থাকে তাহলে অল্প শ্বাসকষ্ট সব সময় লেগেই থাকে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই রোগীরা সব ধরনের শ্বাসকষ্টকে হাঁপানি ভেবে হাঁপানির ওষুধ খায়, এমনকি স্টেরয়েড বড়ি পর্যন্ত খেতে থাকে। অনেক সময় প্রচুর সংখ্যক রোগীকে দেখেছি ইনহেলার ব্যবহার করতে। প্রকৃতপক্ষে সব শ্বাসকষ্টই হাঁপানি নয়। সব ধরনের বক্ষব্যাধিতেই শ্বাসকষ্ট একটি অন্যতম প্রধান উপসর্গ। বহু বছর নিজে নিজে হাঁপানির ওষুধ এমনকি ইনহেলার পর্যন্ত ব্যবহার করে রোগী যখন কোনো উপকার পায় না তখন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে আসে। চিকিৎসক তখন এক্স-রে, লাঞ্চ ফাংশন পরীক্ষা করে জানতে পারে যে, রোগী হাঁপানিতে ভুগছে না বরং তার শ্বাসকষ্টের কারণ হলো নষ্ট হয়ে যাওয়া ফুসফুস। এখন প্রশ্ন আসে কেন ফুসফুস নষ্ট বা বিপর্যস্ত হয়। এর উত্তরে বলতে হয়, অনেক ধরনের বক্ষব্যাধিতে একটি বা দুটি ফুসফুস নষ্ট হয়ে যেতে পারে। প্রধান কারণ হলো যক্ষ্মা। বেশির ভাগ যক্ষ্মা রোগীই যখন চিকিৎসকের কাছে আসে তখন তার ফুসফুসের অনেক ক্ষতিসাধিত হয়ে গেছে। আমাদের দেশে কাশির সঙ্গে রক্ত না গেলে রোগী সাধারণত ডাক্তারের কছে আসে না। যক্ষ্মা সন্দেহ করার সঙ্গে সঙ্গেই রোগী যদি চিকিৎসকের কাছে আসে এবং চিকিৎসক যদি প্রয়োজনীয় পরীক্ষা যেমন, কফ পরীক্ষা, এক্স-রে পরীক্ষা সঙ্গে সঙ্গে করান তাহলে যক্ষ্মা প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়ে এবং ফুসফুসও ততটা ক্ষতিগ্রস্ত হয় না। যক্ষ্মা হয়ে ফুসফুস নষ্ট হয়ে যাওয়ার পর চিকিৎসা শুরু করলে যক্ষ্মার জীবাণুগুলো মরে যাবে ঠিকই কিন্তু ধ্বংসপ্রাপ্ত ফুসফুস তো আর ঠিক হবে না। যক্ষ্মা ছাড়াও ফাঙ্গাসের কারণে বক্ষব্যাধি, ফ্রাইড লেন্ডারস জীবাণুঘটিত বক্ষব্যাধিসহ বিভিন্ন জীবাণু সংক্রমিত হয়ে ফুসফুস নষ্ট হয়ে গেলেও ডেস্ট্রয়েড লাঞ্চ দেখা দিতে পারে। ব্যাপক পরিমাণে ব্রংকিএকটেসিস হয়েও ফুসফুস নষ্ট হয়ে যেতে পারে। আঘাতজনিত কারণেও ফুসফুসে বাতাস ঢুকে নিউমোথোরাস্ক তৈরি করে ফুসফুস ধ্বংসপ্রাপ্ত হতে পারে। ফুসফুসের পর্দায় পুঁজ জমে অথবা ফুসফুসে ফোঁড়া হয়েও ফুসফুসকে নষ্ট করে দিতে পারে। এক কথায় অনেক কারণেই ফুসফুস বিপর্যস্ত হতে পারে। এখন নষ্ট হয়ে পড়া ফুসফুসের লক্ষণ নিয়ে আলোকপাত করছি। আগেই লিখেছি এ সমস্যা দেখা দিলে বিভিন্ন তীব্রতায় শ্বাসকষ্ট দেখা যায়। কফ, কাশি লেগেই থাকে। অনেক সময় কফে জীবাণু সংক্রমিত হয়ে হলুদ হয়ে যায়। তখন জ্বর দেখা দেয়।  বুক ব্যথা করে এবং ব্যথা কম-বেশি হতে পারে।

ফুসফুস নষ্ট হয়ে গেলে একটি কষ্টকর শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা দেখা দেয়। সুস্থ শরীরের জন্য সুস্থ ফুসফুস প্রয়োজন। ধূমপান ফুসফুসের রোগ প্রতিরোধক শক্তিকে বিনষ্ট করে। তাই ধূমপান বন্ধ করতে হবে। রোগী এবং চিকিৎসকের উভয়কেই সচেতন হতে হবে যাতে ফুসফুস নষ্ট হওয়ার আগেই এর চিকিৎসা শুরু করা যায়।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 49 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ