প্রধানমন্ত্রীর জন্য মসজিদে-মন্দিরে প্রার্থনার প্রস্তুতি

Print

%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%a7%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a6%ae%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a7%80%e0%a6%b0-%e0%a6%9c%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%af-%e0%a6%ae%e0%a6%b8%e0%a6%9c%e0%a6%bfআকাশে যখন কয়েক হাজার ফুট উঁচুতে তখন যান্ত্রিক ত্রুটি। জরুরি অবতরণ। প্রাণে রক্ষা শতাধিক যাত্রীর। সেই বিমানে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বভাবতই বিষয়টি নিয়ে তোলপার রাষ্ট্রযন্ত্রে।
তবে অক্ষত আছেন প্রধানমন্ত্রী। এ কারণে তার জন্য বিশেষ দোয়া আর প্রার্থনার আয়োজন হচ্ছে আজ। সব মসজিদে মসজিদে জুমার নামাজের পর বিশেষ দোয়া আর মন্দির, গির্জা, প্যাগোডায় প্রার্থনার আহ্বান জানিয়েছে ক্ষমতাসীন দল।

গত রবিবার হাঙ্গেরি সফরে যাওয়া প্রধানমন্ত্রীর বিমানে যান্ত্রিক গোলযোগ দেখা দেয়ায় সেটি জরুরি অবতরণ করে তুর্কমেনিস্তানে। চার ঘণ্টা পর ত্রুটি সারিয়ে বিমানটি আবার যাত্রা করে হাঙ্গেরির পানে।
সেই খবরটি বাংলাদেশে এসেছিল খানিক পরে। সঙ্গে সঙ্গেই উদ্বিগ্ন হয় মানুষ, উদ্বিগ্ন হয় ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা।

তিন দিনের সম্মেলন শেষে গত বুধবার গভীর রাতে প্রধানমন্ত্রী দেশে ফেরেন নিরাপদেই। তবে তিনি যে বিমানে চেপে গিয়েছিলেন, তিনি ফিরেছেন অন্য একটি উড়োযানে করে।
এর মধ্যে গঠন হয়েছে তদন্ত কমিটি, বের হয়ে এসেছে প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমানের তেলের স্ক্রু ঢিলা ছিল। একটি তদন্তে এই ঘটনাটি বের হয়ে আসার পর বরখাস্ত হয়েছেন বিমানের ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছয় কর্মী। চলছে আরও দুটি তদন্ত কমিটির কাজ।
প্রধানমন্ত্রী নিরাপদে দেশে ফেরায় আপাত স্বস্তি ক্ষমতাসীন দলে। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার ছয় বছর পর ১৯৮১ সালে দেশে ফেরার পর শেখ হাসিনার ওপরও কম হামলা হয়নি। একাধিকবার তাকে গুলি করে হত্যার চেষ্টা হয়েছে, একবার চেষ্টা হয়েছে গ্রেনেড ছুড়ে হত্যার। এসব পূর্ব অভিজ্ঞতার কারণেই আওয়ামী লীগে ধারণা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর বিমানের এই ত্রুটি ইচ্ছাকৃত। তাকে হত্যার জন্য চক্রান্ত কি না-সেটা খতিয়ে দেখার দাবি তারা জানিয়েছেন খোদ প্রধানমন্ত্রীর কাছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবশ্য একে চক্রান্ত হিসেবে দেখছেন না। তিনি বলেছেন, এটা যান্ত্রিক ত্রুটি হিসেবেই ধরে নিয়েছেন তিনি। তারপরও ক্ষমতাসীন দলে উৎকণ্ঠা কাটছে না। প্রধানমন্ত্রী নিরাপদে দেশে ফেরায় সৃষ্টিকর্তার কাছে কৃতজ্ঞতা ও তার জীবন নিরাপদ রাখার কামনা করে আজ বিশেষ প্রার্থনার ডাক দেওয়া হয়েছে।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে জুমার নামাজে অংশ নেবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা।
ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরেও প্রার্থনায় থাকবেন আওয়ামী লীগের সনাতন ধর্মাবলম্বী নেতারা।
প্রার্থনা হবে খ্রিষ্টানদের উপাসনালয় গির্জাগুলোতেও। হবে বৌদ্ধদের উপাসনালয় প্যাগোডায়।
এসব দোয়া ও প্রার্থনায় উপস্থিত থাকতে দলের নেতাকর্মীদেরকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 86 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ