প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য ৫০ হাজার ল্যাপটপ

Print

%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%a5%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%95-%e0%a6%ac%e0%a6%bf%e0%a6%a6%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%b2%e0%a7%9f%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%9c%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%afপ্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি-৩ (পিইডিপি) এর আওতায় আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে ৫০ হাজার ল্যাপটপ ক্রয় করবে সরকার।
এ জন্য ব্যয় হবে ২৬১ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। মোট আটটি লটে ৫টি প্রতিষ্ঠান ল্যাপটপগুলো সরবরাহ করবে বলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।
সূত্র জানায়, সরকার দেশে বিদ্যমান প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গমনোপযোগী সব শিশুর মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতায় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন তৃতীয় প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি গ্রহণ করে। ২০১১ সালের জুলাই থেকে ২০১৬ সালের জুন মেয়াদে এ কর্মসূচি গত ২০১১ সালের ৪ সেপ্টেম্বর একনেক বৈঠকে অনুমোদিত হয়। পরবর্তী সময়ে ১ম সংশোধনীতে এ প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়।
সূত্র জানায়, সরকারি অর্থায়নের পাশাপাশি বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগীর আর্থিক সহযোগিতায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সংস্থাগুলো হচ্ছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), ইন্টারন্যশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইডিএ), ডিপার্টমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট (ডিএফআইডি), ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ), অষ্ট্রেলিয়ান ডিপার্টমেন্ট ফর ফরেন অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড ট্রেড (ডিএফএটি অস-এআইডি), সুইডিশ ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি (সিড), জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা), ইউনিসেফ, গ্লোবাল পার্টনারশিপ ফর এডুকেশন (জিপিই) ডিপার্টমেন্ট অব ফরেন অ্যাফেয়ার্স, ট্রেড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ডিএফএটিডি)।
সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়া ভিত্তিক ক্লাসরুম পরিচালিত হচ্ছে। একইসঙ্গে বিদ্যমান ৬০ হাজারের বেশি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ই-লার্নিং ম্যাটেরিয়াল ভিত্তিক ক্লাসরুম পরিচালনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য ‘কম্পিউটার অ্যান্ড এক্সেসরিজ স্কুল’ কর্মসূচির অধীনে প্রাথমিক সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিতরণের জন্য কম্পিউটার, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর ও সাউন্ড সিস্টেম ক্রয়ের সংস্থান রয়েছে।
সূত্র জানায়, মন্ত্রণালয় থেকে আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হলে বিভিন্ন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান মোট ৮টি লটে ৩৯টি দরপত্র সংগ্রহ করে। এরমধ্যে কম্পিউটার সোর্স লিমিটেড ৩টি, ফ্লোরা টেলিকম লিমিটেড ৪টি, থাকরাল ইনফরমেশন সিস্টেম প্রাইভেট লিমিটেড অ্যান্ড ডিজিটাল টেকনোলজিস লিমিটেড ৩টি, হাইয়ার ইলেক্ট্রিক অ্যাপ্লাইয়ান্স করপোরেশন লিমিটেড ৮টি, হাইয়ার ইন্টারন্যাশনাল (এইচকে) লিমিটেড ৮টি, স্মার্ট টেকনোলজিস (বিডি) ৬টি, ফ্লোরা লিমিটেড ৪টি এবং গ্লোবাল ব্র্যান্ড প্রাইভেট লিমিটেড ৩টি।
সূত্র জানায়, দরপত্রগুলো লটভিত্তিক প্রাথমিক, কারিগরি ও আর্থিক মূল্যায়ন শেষে মোট ৮টি লটের জন্য ৬টি প্রতিষ্ঠানের বিপরীতে নোটিফিকেশন অব অ্যাওয়ার্ড জারি করে। এরমধ্যে কম্পিউটার সোর্স ৬ হাজার ৬৪৪টি, ফ্লোরা টেলিকম লিমিটেড ৭ হাজার ৬৭৬টি, থাকরাল ইনফরমেশন সিস্টেম প্রাইভেট লিমিটেড অ্যান্ড ডিজিটাল টেকনোলজিস লিমিটেড ৬ হাজার ৪১০টি, ফ্লোরা লিমিটেড ৬ হাজার ৩২১টি, গ্লোবাল ব্র্যান্ড প্রাইভেট লিমিটেড ৬ হাজার ৮০৪টি, স্মার্ট টেকনোলজিস (বিডি) ৪ হাজার ৮৪৮টি, ফ্লোরা লিমিটেড ৬ হাজার ৪৯১টি এবং স্মার্ট টেকনোলজিস (বিডি) ৪ হাজার ৮০৬টি ল্যাপটপ সরবরাহ করবে।
সূত্র জানায়, প্রতিটি ল্যাপটপের প্রাক্কলিত দর ৫৩ হাজার টাকা। সে হিসেবে ৫০ হাজার ল্যাপটপের প্রাক্কলিত দর ২৬৫ কোটি টাকা। দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি কর্তৃক ৫০ হাজার ল্যাপটপ ক্রয়ের জন্য কাস্টম ডিউটি, ভ্যাট ছাড়া মোট সুপারিশকৃত মূল্য ২৬১ কোটি ৮৫ লাখ ৯১ হাজার টাকা। যা প্রাক্কলিত দর থেকে ১ দশমিক ১৮ শতাংশ কম। এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাব খুব শিগগির সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে বলে সূত্র জানিয়েছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 60 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
error: