বঞ্চিতরা এবারও ‘বঞ্চিত’ প্রশাসনে তিন স্তরে ৫৬৯ কর্মকর্তার পদোন্নতি

Print

%e0%a6%ac%e0%a6%9e%e0%a7%8d%e0%a6%9a%e0%a6%bf%e0%a6%a4%e0%a6%b0%e0%a6%be-%e0%a6%8f%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%93-%e0%a6%ac%e0%a6%9e%e0%a7%8d%e0%a6%9a%e0%a6%bf%e0%a6%a4-%e0%a6%aa%e0%a7%8dপ্রশাসনের তিন স্তরে ৫৬৯ কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে যুগ্ম সচিব থেকে অতিরিক্ত সচিব পদে ১৪৮ জন, উপসচিব থেকে যুগ্ম সচিব পদে ১৯৩ জন এবং সিনিয়র সহকারী সচিব থেকে উপসচিব পদে ২২৯ কর্মকর্তা রয়েছেন। গতকাল রোববার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে ৫৩৬ কর্মকর্তার পদোন্নতির প্রজ্ঞাপন জারি হয়েছে। বাকি ৩৩ কর্মকর্তা লিয়েন ও শিক্ষাছুটিতে থাকায় তাদের প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি। ছুটি শেষে তারা পদোন্নতি পাওয়া পদে যোগ দেবেন। পদোন্নতির এ ঘোষণায় একটি মহল তুষ্ট হয়েছে, অন্যদিকে কিছু কর্মকর্তা নানা অভিযোগ করেছেন। তাদের মতে, সব ধরনের যোগ্যতা থাকলেও পদোন্নতি পাননি এক হাজার ৩১৬ কর্মকর্তা। এদের মধ্যে বেশিরভাগই তিন-চারবার ‘পদোন্নতিবঞ্চিত’ হয়েছেন। তাদের বঞ্চিত করে দীর্ঘ করা হয়েছে ‘বঞ্চিত’দের তালিকা। বিভিন্ন সময় নানা পর্যায়ে পদোন্নতি দেওয়া হলেও তারা বঞ্চিতই থেকে যাচ্ছেন বলে এ তালিকা মানতে পারছেন না পদোন্নতি না পাওয়া কর্মকর্তারা। তাৎক্ষণিকভাবে তারা সাংবাদিকদের কাছে হতাশা ও ক্ষোভের কথাও জানিয়েছেন। তারা বলেন, পদোন্নতির তালিকায় জামায়াত-বিএনপি সমর্থক অনেক কর্মকর্তাও স্থান পেয়েছেন। আর যোগ্যতা থাকার পরও প্রায় ২৫ মুক্তিযোদ্ধা কর্মকর্তা পদোন্নতি পাননি।
সাবেক আমলারা মনে করছেন, প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ে পদোন্নতির ক্ষেত্রে ‘বঞ্চিত করার এই রীতি’ প্রশাসনিক কাঠামোকে দুর্বল করবে। এতে বঞ্চিতদের মনোবল ভেঙে যায়। তাদের কাজকর্মে দেখা দেয় অনীহা। বেড়ে যায় প্রশাসনে অস্থিরতা। পদোন্নতির ক্ষেত্রে মেধা ও যোগ্যতাকে প্রাধান্য দেওয়া উচিত বলে তারা মনে করেন। তবে সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ থেকে বলা হয়েছে, জ্যেষ্ঠতা অনুযায়ী মেধাবী ও যোগ্য কর্মকর্তাদেরই পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। এসিআর ও অতীত জীবন মূল্যায়ন করে সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ড যাদের সুপারিশ করেছে, তারাই পদোন্নতি পেয়েছেন। তবে মেধাক্রমে প্রথম দিকে থাকলেও গোয়েন্দা রিপোর্ট ভালো না থাকায় অনেক কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেওয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেন, ‘এ পদোন্নতিতে কোনো অস্বচ্ছতা নেই। পদোন্নতির ক্ষেত্রে বিবেচ্য সব দিকের চুলচেরা বিশ্লেষণ করে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। যারা বাদ পড়েছেন, তাদের কোনো একটা দিকের ঘাটতি রয়েছে। এই ঘাটতি পূরণ হলে আগামীতে তারাও পদোন্নতি পাবেন।’
তালিকায় জামায়াত-বিএনপি সমর্থক কর্মকর্তারা :একাধিক কর্মকর্তা ক্ষোভের সঙ্গে গতকাল রোববার বলেন, ‘এবারের পদোন্নতির তালিকায় জামায়াত-বিএনপির সমর্থক কর্মকর্তাও স্থান পেয়েছেন। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রশিবিরের
বড় পদের নেতা ছিলেন এমন কয়েক কর্মকর্তাও রয়েছেন এ তালিকায়। আবার আওয়ামী সমর্থক হিসেবে পরিচিত, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান এমন অনেক কর্মকর্তাকেও তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।’ যোগ্যতা থাকার পরও প্রায় ২৫ মুক্তিযোদ্ধা কর্মকর্তা পদোন্নতি পাননি বলে অভিযোগ রয়েছে।
অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতি :প্রশাসনের তিন স্তরের মধ্যে অতিরিক্ত সচিব পদে ১৪৮ কর্মকর্তা পদোন্নতি পেয়েছেন। এ পদে পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তাদের বেশিরভাগই ৮৬ ব্যাচের। যুগ্ম সচিব হিসেবে তাদের চাকরির মেয়াদ দুই বছরের বেশি হয়েছে। একই ব্যাচের প্রায় ৮৪ কর্মকর্তাকে অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। তাদের ৩৫ জন ৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা। আর ১৯ জন ৮৪ ও ৮২ বিশেষ ব্যাচের কর্মকর্তা। বাকি ১০ কর্মকর্তা রয়েছেন অন্যান্য ক্যাডারের। যুগ্ম সচিব পদে দুই বছর চাকরির অভিজ্ঞতা অর্জনের পর অতিরিক্ত সচিব হিসেবে তাদের পদোন্নতি পাওয়ার কথা। তাই অতিরিক্ত সচিব পদে যারা পদোন্নতি পেয়েছেন, তাদের সবাই যুগ্ম সচিব হিসেবে দুই বছর বা তার বেশি সময় ধরে কর্মরত। তবে এ পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রে ৪৩৯ কর্মকর্তা ‘বঞ্চিত’ হয়েছেন। এদের বেশিরভাগই ৮২ বিশেষ, ৮৪ ও ৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা। এর মধ্যে এমন কর্মকর্তাও রয়েছেন, যিনি যুগ্ম সচিব হিসেবে পাঁচ-ছয় বছর কর্মরত থাকলেও পদোন্নতি পাননি। এ ছাড়া ৮৬ ব্যাচ থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে ৪৬ কর্মকর্তাকে। এ পদে পদোন্নতির যোগ্য ছিলেন ১৩০ জন।
যুগ্ম সচিব :যুগ্ম সচিব পদে ১৯৩ কর্মকর্তা পদোন্নতি পেয়েছেন। এ পদে যারা পদোন্নতি পেয়েছেন, তাদের বেশিরভাগই ১১ ব্যাচের কর্মকর্তা। তারা উপসচিব হিসেবে পাঁচ বছরের বেশি সময় দায়িত্ব পালন করেছেন। এ ব্যাচের ১১৯ কর্মকর্তাকে অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। বাকি কর্মকর্তা রয়েছেন ৭, ৮, ৯ ও ১০ ব্যাচের। এ পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রে ৩৭৭ কর্মকর্তাকে বঞ্চিত করা হয়েছে, যাদের মধ্যে বেশিরভাগই তিন-চারবার পদোন্নতির তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন। ১১ ব্যাচের কর্মকর্তাদের মধ্যে বাদ পড়েছেন ৪৫ জন। এ পদে পদোন্নতির জন্য ১৬৪ কর্মকর্তার নাম উপস্থাপন করা হয়েছিল সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ডের (এসএসবি) বৈঠকে। এ ছাড়া বিগত সময়ে বাদপড়া কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে এবারও বাদ পড়েছেন ৩৩২ জন। এবার বিগত দিনের বাদপড়া কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে এ পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে ৭৪ কর্মকর্তাকে। এদের মধ্যে পদোন্নতির যোগ্য ছিলেন ৪০৬ জন।
উপসচিব :উপসচিব পদে ২২৯ কর্মকর্তা পদোন্নতি পেয়েছেন। এ পদে পদোন্নতিপ্রাপ্তদের মধ্যে প্রশাসনের ২১ ব্যাচের কর্মকর্তাই বেশি। এ ব্যাচ থেকে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে ১৫৮ কর্মকর্তাকে। এ পদে পদোন্নতি এবার সর্বমহলেই প্রশংসিত হচ্ছে। কারণ, প্রশাসনের কর্মকর্তাদের এটিই প্রথম পদোন্নতির পদ। বিগত সময়ে এ পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রে বিবেচ্য ব্যাচের অনেক মেধাবী কর্মকর্তাকেই বাদ দেওয়া হয়েছে। বাদ দেওয়ার তালিকাও ছিল দীর্ঘ। তবে এবার ২১ ব্যাচের পদোন্নতির ক্ষেত্রে পদোন্নতিযোগ্য ১৬৫ কর্মকর্তার মধ্যে বাদ পড়েছেন মাত্র সাতজন। ২১ ব্যাচের বাইরে অন্য ক্যাডার থেকে এ পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে ৪৫ কর্মকর্তাকে। অবশিষ্ট ২৬ কর্মকর্তা বিগত সময়ে বাদপড়াদের মধ্য থেকে পদোন্নতি পেয়েছেন। অবশ্য এ পদে বিগত সময়ে বাদপড়া কর্মকর্তার সংখ্যা ছিল ৩১০। বিগত দিনের বাদপড়া কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে এবারও বাদ পড়েছেন ২৮৪ জন। অন্য ক্যাডার থেকে ২৫৬ কর্মকর্তাকে এ পদে পদোন্নতির প্রস্তাব করা হয়েছিল।
মিষ্টি ও ফুলের ছড়াছড়ি :গতকাল রোববার আনুমানিক সকাল ১০টা। পদোন্নতির খবর নিশ্চিত হওয়ার পর সচিবালয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে ভাগ্যবান কর্মকর্তাদের ভিড় জমতে থাকে। তাদের সবার মুখই হাস্যোজ্জ্বল। মিষ্টি ও ফুল নিয়ে একে একে অনেক কর্মকর্তাই উপস্থিত হন মন্ত্রণালয়ের বারান্দায়। তিন স্তরের মন্ত্রণালয়ের আদেশ জারির পরপরই মিষ্টিমুখ ও ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময় চলতে থাকে। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক ও জনপ্রশাসন সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীর কক্ষে যান পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তাদের অনেকেই। আবার কেউ কেউ জনপ্রশাসনে যোগদানপত্র জমা দেন।
পদোন্নতি পাওয়া এক কর্মকর্তা এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘কর্মজীবনে পদোন্নতির আনন্দই আলাদা। তাই সবার সঙ্গে এই আনন্দ ভাগ করতে এখানে চলে এসেছি।’
পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তারা তাদের মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিবের সঙ্গে দেখা করেন। ওই মন্ত্রণালয়ের অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারী পদোন্নতিপ্রাপ্তদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 57 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ