মিয়ানমারে রোহিঙ্গা হত্যা: ঢাবিতে মানববন্ধন সোমবার

Print

%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a7%9f%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a7%87-%e0%a6%b0%e0%a7%8b%e0%a6%b9%e0%a6%bf%e0%a6%99%e0%a7%8d%e0%a6%97%e0%a6%be-%e0%a6%b9%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%beমিয়ানমারের আরাকান ও রাখাইন রাজ্যে নির্বিচারে মুসলিম নারী, শিশু ধর্ষণ ও গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সোমবার সকাল ১১টায় সন্ত্রাস বিরোধী রাজু ভাস্কর্যের সামনে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হবে।
শনিবার বিবার্তাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার গ্রুপের এডমিন শাহরিয়ার প্রামাণিক। তিনি জানান, ‘বিশ্ব গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিয়ানমারের মুসলিম হত্যার চিত্র দেখে অবাক হয়েছি। কোনো ধর্মেই মানুষ হত্যার কথা বলেনি। অথচ মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের নির্বিচারে হত্যা করা হচ্ছে। মূলত এ হত্যা বন্ধের দাবিতে আমরা একত্রিত হব।’
তিনি আরো জানান, ‘আমাদের মানববন্ধনের মূল দাবি থাকবে গণহত্যা বন্ধে জাতিসংঘের হস্তক্ষেপ ও শান্তিতে নোবেল জয়ী অং সান সুচির নোবেল বাতিল।’
এদিকে মানববন্ধনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের যোগদানের জন্য আহ্বান জানিয়ে ঢাবি শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন পোস্ট করেছেন ঢাবি পরিবার নামক গ্রুপে। সোমবারের মানববন্ধনের জন্য ‘মিয়ানমারে মুসলমানদের ওপর নির্যাতন ও গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন’ শিরোনামে ফেসবুক ইভেন্ট খুলেছে তারা।
উল্লেখ্য, মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলিমদের সংখ্যা ১১ লাখের ওপর। জাতিসংঘের মতে, তারা বিশ্বের সবচেয়ে নিপীড়িত সম্প্রদায়ের একটি। দীর্ঘদিন সামরিক শাসনের অধীনে ছিল মিয়ানমার। ২৫ বছর পর দেশটিতে গত বছরের ৮ নভেম্বর প্রথম কোনো গণতান্ত্রিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে অর্ধ-শতকের সামরিক শাসনের অবসান হয়। মিয়ানমারের সামরিক সরকার বরাবরই ছিল রোহিঙ্গা-বিরোধী।
ধারণা করা হচ্ছিল, সুচি’র দল এনএলডি ক্ষমতায় এলে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা সমস্যার অবসান ঘটবে। কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি। ওই অঞ্চলে একটি স্বাধীন তদন্ত কমিশন গঠনে কূটনৈতিকদের দাবিও ফিরিয়ে দিয়েছেন সুচি।
এর আগে ২০১২ সালের এক সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় স্থানীয় বৌদ্ধদের হাতে নির্মম নির্যাতন এবং হত্যাকাণ্ডের শিকার হয় রোহিঙ্গারা। তখনও এসব ইস্যুতে কোনো কথা বলেননি সুচি। বারবার রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ায় বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে বিতর্কিত হয়ে উঠছেন শান্তিতে নোবেলজয়ী সুচি এবং বর্তমানে মিয়ানমারের রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকা তার নেতৃত্বাধীন দল। এই প্রেক্ষাপটে শান্তিতে পাওয়া সুচির নোবেল ফিরিয়ে নেয়ার দাবি জানিয়েছেন অনেকে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 81 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ