শুক্রবার থেকে ভোটার তালিকা হালনাগাদ

Print

%e0%a6%b6%e0%a7%81%e0%a6%95%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%a5%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a7%87-%e0%a6%ad%e0%a7%8b%e0%a6%9f%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%a4%e0%a6%be%e0%a6%b2%e0%a6%bfবয়স ১৮ হওয়া সত্ত্বেও যারা এখনও ভোটার হতে পারেননি তাদের ভোটার হওয়ার সুযোগদিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তবে এবার তথ্য সংগ্রহকারীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করবেন না।
কেউ ভোটার হতে চাইলে তাকে সংশ্লিষ্ট থানা-উপজেলা নির্বাচন কমিশন অফিসে গিয়ে ভোটার হতে হবে। ভোটার তালিকা হালনাগাদে তথ্য সংগ্রহের কাজ শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) শুরু হয়ে চলবে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত।15193610_1244181572322995_6076709777766904640_n
এ বিষয়ে ইসি সচিব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ জানান, বাদপড়াদের ভোটার হওয়ার সুযোগ দিতেই ২৫ নভেম্বর থেকে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত নিবন্ধনের এ সুযোগ দেওয়া হয়েছে। ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারিতে যারা ভোটারযোগ্য হবেন তাদের জন্য এ সুযোগ।
তিনি জানান, কমিশন মনে করছে, গেল বছরে নিবন্ধনের জন্য তথ্য সংগ্রহের সময় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নাগরিক সাড়া দেননি। তাই এবার তাদের তালিকাভুক্ত করা হবে। আর কেউ নিবন্ধন করতে চাইলে তাকে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে আসতে হবে। ২ জানুয়ারি খসড়া প্রকাশের সময় তাদের নামও থাকবে ভোটার তালিকায়।
সচিব আরো জানান, আগামী বছরের যেকোনো সময়ে নতুন করে আবারও ভোটার তালিকা হালনাগাদের পরিকল্পনা রয়েছে কমিশনের। গত বছর মে থেকে নভেম্বর পর্যন্ত ভোটারযোগ্যদের পাশাপাশি কম বয়সীদেরও (১৫-১৭ বছর) তথ্য নেয় ইসি। এ সময় বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহকারীরা ফরম পূরণ করে নেন।
এ হালনাগাদে যাদের জন্ম ১ জানুয়ারি ১৯৯৯ বা তার আগে অথচ ভোটার তালিকা হালনাগাদ ২০১৫-২০১৬ কার্যক্রমে নিবন্ধন করা হয়নি তাদের নিবন্ধিত করে ২ জানুয়ারি খসড়া ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।
এ বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে ১৬ নভেম্বর মাঠ পর্যায়ে সব উপজেলা-থানা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রেজিস্ট্রেশন অফিসার বরাবর নির্দেশনাও পাঠিয়েছেন ইসির সহকারী সচিব রৌশন আরা বেগম।
রৌশন আরা বেগমের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ভোটররা সংশ্লিষ্ট উপজেলা বা ইউনিয়ন বা পৌরসভা সচিবের দফতর থেকে ভোটার নিবন্ধন ফরম সংগ্রহ করবেন। তার সঙ্গে জন্ম নিবন্ধন সনদ, এসএসসি বা সমমান পরীক্ষার সনদসহ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) অন্যান্য কাগজপত্র উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে জমা দিয়ে ভোটার নিবন্ধন করতে হবে।
নির্দেশনায় আরো বলা হয়েছে, এ সময় কেউ ভোটার এলাকা পরিবর্তন (এক স্থান থেকে অন্য স্থানে) করতে চাইলেও নির্ধারিত ফরম পূরণ করে তা করতে পারবেন।
২০০৮ সালে প্রথম ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ শুরু হয়। সে সময় ৮ কোটি ১০ লাখের বেশি নাগরিককে তালিকাভুক্ত করে জাতীয় পরিচয়পত্রও দেওয়া হয়। ইতোমধ্যে ২০১০, ২০১২, ২০১৪ ও ২০১৬ সালে ভোটার তালিকা প্রকাশ করে ইসি।
সর্বশেষ হালনাগাদ অনুযায়ী, দেশের মোট ভোটার সংখ্যা ৯ কোটি ৯৮ লাখ ৯৮ হাজার ৫৫৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৫ কোটি ৩ লাখ ২০ হাজার ৩৬২ জন এবং নারী ভোটার ৪ কোটি ৯৫ লাখ ৭৮ হাজার ১৯১ জন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 126 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ