সাবধান, সামাজিক মাধ্যমের ছবিতেও ম্যালওয়ার!

Print

%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%ac%e0%a6%a7%e0%a6%be%e0%a6%a8-%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%9c%e0%a6%bf%e0%a6%95-%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a7%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%ae%e0%a7%87%e0%a6%b0টুইটার, ফেসবুক আর লিংকডইনের মত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো যেন আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অংশ হয়ে গেছে। তাই অন্য যে কোনো ওয়েবসাইটের তুলনায় হ্যাকার কিংবা প্রযুক্তি অপরাধীদের সবচেয়ে বেশী পছন্দের প্লার্টফর্ম এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো।
প্রযুক্তির খোঁজখবর যারা রাখেন বা ব্যবহার করেন এতদিন তারা কেবল এসব সাইটে ভাইরাস বা ম্যালওয়ার ছড়ানোর ঘটনা ঘটছে তা জানতো। কিন্তু এখন সেই কাজ করা হচ্ছে আর চতুরতার সঙ্গে।
কারণ ব্যবহারকারীরা যেহেতু বুঝে গেছে কোন কোন লিংকগুলো আসলে ভাইরাস, তাই হ্যাকারদের আগের পদ্ধতি এখন আর তেমন কাজে আসছে না। আর এজন্যই এখন ম্যালওয়ার ছড়াতে নতুন পদ্ধতির আশ্রয় নিয়েছে ইন্টারনেট অপরাধীরা। ব্যবহারকারীদেরকে ধোকা দিতে খুব সূক্ষ্ণভাবে করা হচ্ছে সেই কাজ।
এবার তারা ছবির সাহায্যে সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে দিচ্ছে নতুন ধরনের এক ম্যালওয়ার।
এই ম্যালওয়ার অদৃশ্য ভাইরাস কিংবা ট্রোজেন ভাইরাস অথবা ছায়া ভাইরাসের তুলনায় অনেক বেশী শক্তিশালী এবং ব্যবহারকারীকে সহজেই ধোঁকা দিতে সক্ষম।
ব্যবহারকারীর কম্পিউটারে ভাইরাস ঢুকানোর নতুন এই পদ্ধতির নাম দেয়া হচ্ছে ‘ইমেজ গেট’ হিসেবে। কারণ এখানে একটি ছবি কম্পিউটারে ভাইরাস ঢুকানোর মাধ্যম হিসেবে কাজ করছে।
নানা ধরনের আকর্ষণীয় ছবি হ্যাকাররা এখন ফেসবুক, টুইটার আর লিংকডইনের মত জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছে। বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে সেসব ছবি কাউকে কাউকে ম্যাসেজও করে দিচ্ছে।
এই ছবিতে আকৃষ্ট হয়ে যদি কেউ তা ডাউনলোড করে তারপর ওপেন করে তাহলেই সব শেষ। কেননা ছবিটি খোলার সাথে সাথে এর সাথে থাকা পেলোড ফাইলটি ভাইরাস হিসেবে কাজ করা শুরু করে দেয়। আর এ ঘটনা আক্রান্ত ব্যক্তি যখন বুঝতে পারেন তখন অনেক দেরি হয়ে যায়।
এই ম্যালওয়ার ভাইরাসটি এতটাই শক্তিশালী যে তাৎক্ষণিকভাবে নিরাময়ের জন্য কোন কিছুই করার থাকে না ব্যবহারকারীর। তাই আপাতত সাবধানতা অবলম্বন করা ছাড়া আর কোন পরামর্শ দেননি প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 73 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ