স্টার লাইনের অতিরিক্ত ভাড়া আদায়

Print
স্টার লাইনের অতিরিক্ত ভাড়া আদায়. ফ্লাইওভারের টোল ফাকি সহ যাত্রীদের হয়রানির অভিযোগ!

ফেনীর জনপ্রিয় যাত্রী পরিবহন সার্ভিস স্টার লাইন অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এমন অভিযোগ করেছে যাত্রীরা।যাত্রীরা আরো অভিযোগ করে বলেন অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের সাথে সাথে হয়রানী,দুর্বব্যাবহার,হুমকি ধামকিতো রয়েছ। স্টার লাইন পরিবহনের ভাড়া আদায়ের রসিদ দেখে যাত্রীদের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়।

 

ভাড়া আদায়ের সরকার নির্ধারিত অংক কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে স্টার লাইন কর্তৃপক্ষ বছরের পর বছর অনেকটা প্রকাশ্যে তাদের অপকর্মটি করে যাচ্ছে।অনুসন্ধানে জানা যায়,সরকার প্রতি কিলিমিটারে জনপ্রতি১.৪২ টাকা ভাড়া আড়ায় নির্ধারন হরে দেয়।কিন্তু স্টার লাইন কর্তৃপক্ষ তার চেয়ে অনক বেশী ভাড়া আদায় করছে।ফেনী থেকে ঢাকার দুরত্ব ১৫১ কি:মি:।সরকারী হিসেব মোতাবেক-১৫১কি:মি:x১.৪২টাকা =২১৪.৪২ টাকা ভাড়া আদায়ের কথা।

 

কিন্তু সেখানে স্টার লাইন দির্ঘ দিন ধরে ২৭০টাকা ভাড়া আদায় করছে।সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী প্রতি কিলোমিটারে ভাড়া ছিল ১ টাকা ৪৫ পয়সা। কিন্তু তেলের দাম কমায় বর্তমানে তা কমিয়ে ১ টাকা ৪২ পয়সা করার নির্দেশনা দেয় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়।যাত্রীরা অভিযোগ করে বলেন,ফ্লাইওভারের টোল প্রতি গাড়ী ২৬০ টাকা ফাকি দিতেই ষ্টার লাইন প্রায় বিকল্প পথে যাতায়াত করে।স্টার লাইন পরিবহনে নিয়মিত ভ্রমনকারী সোনাগাজী প্রেস ক্লাবের ক্রীড়া সম্পাদক সোহাগ হাই বলেন,গত কিছুদিন পূর্বে ষ্টার লাইন পরিবহনের ঢাকা মেট্রো-ব ১৪-৭০৫১ ফেনীর উদ্যেশ্যে রওয়ানা দেওয়া একটি গাড়ি টিটি পাড়া থেকে একটু সামনে যাওয়ার সাথে সাথে গাড়ীর সুপারভাইজার ঘোষনা দেয় জনপ্রতি অতিরিক্ত ১০ টাকা করে দিলে বাস ফ্লাইওভার দিয়ে যাবে।যাত্রীরা প্রতিবাদ জানিয়ে চেচামেচী শুরু করে চালক, সুপারভাইজারের সাথে বাকবিতন্ডা শুরু করে। শেষ পর্যন্ত কেউ টাকা না দেয়ায় চালক 13043620_1083044145099565_3801365732802257088_nদিয়ে না গিয়ে বাসটি বিকল্প রাস্তায় নিয়ে যায়।
সুপার ভাইজার জানান প্রতিটি বাস ফ্লাইওভারের উপর দিয়ে গেলে প্রতিবার ২৬০ টাকা করে দিতে হয়।তাই তারা বিকল্প রাস্তা ব্যাবহার করেন। জানা যায় ষ্টার লাইন পরিবহনের ১০০ টি গাড়ী প্রতিদিন ভোর থেকে রাত ১২ টা পর্যন্ত যাতায়াত করে।ফ্লাইওভার ব্যাবহার না করে বিকল্প পথে যাতায়াতের কারনে প্রতিদিন ২৬ হাজার টাকা হারে মাসে প্রায় ৮ লাখ টাকার টোল ফাকি দিয়ে যাচ্ছে। এতে যাত্রীদের কষ্ট হলেও মালিক পক্ষ অনেক বেশী লাভবান হন।
কয়েকজন যাত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন অন্য কোন পরিবহন ফেনীতে ঢুকতে না দিয়ে বছরের পর বছর ধরে ফেনীবাসীকে একপ্রকার জিম্মি করে রেখেছে স্টার লাইন।কিন্তু যাত্রী সেবার মান না বাড়ীয়ে বরং যাত্রীদের হয়রানি আর ভোগান্তি বাড়িয়েছে।তারা আরো বলেন,ষ্টারলাইনের মত এত বিশাল বড় প্রতিষ্ঠান যে প্রতিষ্ঠানের স্বর্তাধিকারী হচ্ছেন ফেনীর মেয়র ও সদ্য যোগ দেয়া আওয়ামীলীগ নেতা হাজী আলাউদ্দিন। অথচ তার প্রতিষ্ঠানই রাষ্ট তথা সরকারকে ফাকি দিয়ে যাচ্ছেন।
ষ্টার লাইন পরিবহন ঢাকায় প্রবেশের সময় ফ্লাইওভার ব্যবহার করলেও ঢাকা ছেড়ে যাবার সময় টোল ফাকি দিতে বিকল্প সড়ক ব্যবহার করে। ওই সড়কে যাতায়াতে একদিকে যেমন দীর্ঘ সময় লাগে তেমনি অসম্ভব ঝাকুনি খেতে হয় এতে বৃদ্বা ও অসুস্থ্যদের খুব বেশী কষ্ট হয়।যাত্রীরা স্টার লাইন পরিবহনের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় ও যাত্রী হয়রানী বন্দে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 30 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ