ATM থেকে ছড়াচ্ছে যৌনরোগ !

Print

atm-%e0%a6%a5%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a7%87-%e0%a6%9b%e0%a6%a1%e0%a6%bc%e0%a6%be%e0%a6%9a%e0%a7%8d%e0%a6%9b%e0%a7%87-%e0%a6%af%e0%a7%8c%e0%a6%a8%e0%a6%b0%e0%a7%8b%e0%a6%97মানুষ অভ্যাসের দাস। কু-অভ্যাস এক মুহূর্তে বদলে দিতে পারে জীবনযাপন। যেমন-থুতু দিয়ে নোট গোনা অনেকের কু-অভ্যাস। নোট যেহেতু হাতে হাতে ঘোরে, তাই বিশেষজ্ঞরা বলেন, নোট নাকি জীবাণুদের স্বচ্ছন্দ আশ্রয়। আর থুতু দিয়ে নোট গোনার পর থুতু-জীবাণু মিলেমিশে কী হয়, তা সহজেই বুঝতে পারছেন। অনেকে তো না জেনে এমন কু-অভ্যাসের শিকার হয়ে যান। অনেকে আবার জেনেও এই কু-অভ্যাস থেকে বেরোতে পারেন না। এতো গেল নোটের কথা।
এবার আসি ATM-র কথায়। এই নিত্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রটি যে কখন মানুষের জীবনে অস্থিমজ্জার মতো মিশে গেছে তা আমরা বুঝতেই পারি নাই। আজ কাল ATMএর কারণে আর শুক্র-শনি নেই। সপ্তাহের সাত দিনই আপনার চাহিদামতো সুবিধা দিতে প্রস্তুত। যারা দৈনন্দিন ATM-এ যান, তাদের এই তথ্যটি জেনে রাখা ভালো।
আপনার সেবায় সদা নিয়োজিত ATMটি বহু আকাঙ্খিত নোট হাতে তুলে দেয়ার পাশাপাশি সবার অলক্ষ্যে একটি প্রাণঘাতী কাজও সেরে ফেলছে জানেন কি ? একদল বিজ্ঞানীর গবেষণায় উঠে এসেছে, ATM-র যে কি প্যাডটির সাহায্যে আপনি নোট পাওয়ার প্রক্রিয়া সুগম করেন, সেখানেই লুকিয়ে আছে অসংখ্য প্রাণঘাতী জীবাণু। যখনই না আপনি কি প্যাডের বাটনে চাপ দিচ্ছেন, সেই জীবাণুর দল জায়গা পরিবর্তন করে চলে আসছে আপনার শরীরে। অজান্তেই। এরপর আপনি অসুস্থ হয়ে পড়লে সেই সুযোগে শরীরের সার্বিক ক্ষতি করতে তেড়েফুড়ে লাগছে জীবাণুর দল।
নিউইয়র্ক ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক জেন কার্লটনের নেতৃত্বে এক গবেষকদল গবেষণা চালিয়ে জানতে পেরেছে ATM কি প্যাড জীবাণুদের আস্তানা। নানা উৎস থেকে সৃষ্ট জীবাণুরা জাকিয়ে বসে থাকে ATM কি প্যাডে। বায়ু বা ভূমিবাহিত জীবাণুরা সহজেই কি প্যাডের উপর বাসা বেধে ফেলে। এবং দ্রুত স্থানান্তরে সক্ষম হয়।
প্রফেসর কার্লটনের নেতৃত্বে গবেষকদলটি ম্যানহাটন, কুইনস এবং ব্রুকলিন শহরের প্রায় ৬৬টি ATM থেকে নমুনা সংগ্রহ করে। ২০১৪ সালের জুন-জুলাইয়ে ওই নমুনা সংগ্রহ করা হয়। বিশেষ পদ্ধতিতে ATM কি প্যাড থেকে সংগ্রহ করা হয় DNA। তারপর শুরু হয় গবেষণা।
গবেষণায় দেখা যায়, টেলিভিশন, বিশ্রামঘর, রান্নাঘর, বালিশ, কাঁটাযুক্ত মাছ, শামুক, মুরগি, নষ্ট হয়ে যাওয়া দুগ্ধজাত সামগ্রীর মধ্যে যে ধরনের জীবাণু মেলে, ঠিক একই গোত্রের জীবাণুর স্বচ্ছন্দ আশ্রয় ATM কি প্যাডে।
গবেষকরা বলছেন, নিত্যদিনের কাজ যখন আমরা সারি, তখনও জীবাণু আমাদের শরীরে প্রবেশ করে।- যেমন ধরা যাক কেউ একজন খাবার খেলেন। খাবার থেকে তার শরীরে চলে গেল জীবাণু। তারপর তিনি ATM-এ গেলেন টাকা তুলতে। তার হাতের জীবাণু চলে গেল ATM কি প্যাডে। তারপর সেখানে আগে থেকেই যে সব জীবাণুরা ছিল, তাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব পাতাল। পরে অন্যকোনও গ্রাহক যখন ATM-এ টাকা তুলতে গেলেন, তখন চলে গেল তার শরীরে।
এই ধরনের জীবাণুর পাশাপাশি আরও দু’ধরনের পরজীবীর অস্তিত্ব টের পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এক, যে পরজীবী মানুষ এবং অন্য স্তন্যপায়ীদের খাদ্যতন্ত্রের নিম্নাংশে পাওয়া যায় তা মিলছে ATM কি প্যাডে। দুই, ট্রাইকোমোনাস ভ্যাজিনালিস ( যৌনরোগ সংক্রমণ ঘটায় এই পরজীবী) গোত্রের আরেক পরজীবী।
গবেষকরা বলছেন, এই দুই পরজীবীর উপস্থিতি ATM থেকে টাকা তুলতে যাচ্ছেন এমন গ্রাহকদের জন্য ভয়ানক হতে পারে। যৌনরোগ ছড়াতে এই দুই পরজীবী বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 219 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ